kolkata bengali news

ডেস্ক: কোনও মতে টিকে থাকা কালো ত্রিপলখানা রোদ, বৃষ্টি, ঝড়, জলের থেকে উতরে দিয়েছে ২৬ টা দিন। কিন্তু এক একটা দিনের সঙ্গে সঙ্গে পেটে খিদের জ্বালাটা বেড়েছে ক্রমশ। দীর্ঘ দিন খালি পেটে থাকার পর খিদেটা আর তেমন লাগে না, শুধু দুর্বল শরীরে গাটা ঝিমঝিম করে, এলিয়ে পড়তে চায় বিছানায়। ভুখা পেটে ধর্মতলার রাস্তায় বসে থাকার পর অবশেষে এসএসসি অনশনকারীদের উপর সদয় হল মুখ্যমন্ত্রীর দফতর। জানা গেল, স্কুল শিক্ষা দফতরের কাছে এই বিষয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট তলব করল সরকার। ফলে এতদিন পর সামান্য হলেও আসার আলো পৌঁছন ধর্মতলার কালো ত্রিপলগুলির নিচে।

চাকরির দাবিতে অনশনে বসা ছাত্রছাত্রীদের শুরু থেকেই দাবি ছিল এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করুক মুখ্যমন্ত্রী। তবে সেই দাবি দাবিই থেকে গিয়েছিল বহুদিন ধরে, মুখ্যমন্ত্রী তো দুরের কথা কোনও নেতা মন্ত্রীই সেদিকে পা বাড়াননি। দিন কুড়ি পেরোনোর পর অবশ্য একজন একজন করে আসতে থাকেন কালো ত্রিপলটার নিচে। আর ২৬ দিনের মাথায় জানা গেল, মুখ্যমন্ত্রীর দফতর গোটা বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করছে। জানা গিয়েছে, স্কুলশিক্ষা দফতরের কাছে ইতিমধ্যেই রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে। আর মুখ্যমন্ত্রীর দফতর বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়ার পর বৈঠকে বসেছে স্কুল শিক্ষা দফতরের আধিকারিকরা। রিপোর্টে জানাতে বলা হয়েছে অনশনকারীদের দাবি কী?

এদিকে সোমবার ২৬ দিনে পা দেওয়া অনশনকারিদের সঙ্গে দেখা করতে যান কবীর সুমন। তাঁদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের দাবি জানান তিনি। এক ফেসবুক পোস্ট লিখে তিনি জানান, ‘সরকার এখনও কোনও সদর্থক ব্যবস্থা নিয়ে এই সমস্যা মেটানোর চেষ্টা করছেন না। এই উদাসীনতা যে হৃদয়হীনতা ও নিষ্ঠুরতার পর্যায়ে পৌঁছিয়েছে, তা আমাদের কাছে অতীব বেদনাদায়ক মনে হয়েছে। আমি সরকারকে সনির্বন্ধ অনুরোধ জানাচ্ছি, যথোপযুক্ত সহানুভূতির সঙ্গে এই সমস্যার সমাধান করুন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here