national news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দেশের মধ্যে ধর্ষণের রাজধানীতে পরিণত হয়েছে উত্তরপ্রদেশের উন্নাও জেলা। এই জেলায় একের পর এক ধর্ষণ মুখ পুড়িয়েছে গোটা দেশের। তা সত্ত্বেও হুঁশ নেই প্রশাসনের। বরং গাফিলতির চূড়ান্ত নজির গড়ে অভিযোগ না নিয়ে নির্যাতিতাকে বাড়ি পাঠাল উন্নাও পুলিশ। সঙ্গে এটাও জানিয়ে দেওয়া হল, ‘আগে তো ধর্ষণ হোক, তখন দেখা যাবে।’ ন্যাক্কারজনক এমন ঘটনাই এবার ঘটল উন্নাওয়ের সিন্দুপুর গ্রামে এক নির্যাতিতার সঙ্গে।

সংবাদমাধ্যমের কাছে নির্যাতিতার অভিযোগ, ঘটনাটি ঘটেছিল কয়েকমাস আগে। ওষুধ কিনতে যাওয়ার সময় রাস্তায় তাঁর পথ আটকায় ৫ যুবক। তাদের মধ্যে ৩ জন ছিল রাম মিলান, গুড্ডু ও রামবাবু। নির্জন জায়গায় তাঁকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে অভিযুক্তরা। কোনওমতে সেখান থেকে পালিয়ে স্থানীয় থানায় যান নির্যাতিতা। তবে পুলিশের কাছে গোটা ঘটনা জানিয়ে অভিযোগ দায়ের করতে গেলে তার কথায় আমল দেয়নি পুলিশ উল্টে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হও, ‘ধর্ষণতো হয়নি। আগে ধর্ষণ হোক। তারপর দেখা যাবে।’ এরপর রীতিমতো ক্ষোভ উগরে ওই নির্যাতিতা বলেন, ‘এই যদি দেশের আইনের রক্ষক হও। তবে মানুষ ন্যায় কীভাবে পাবে।’

পাশাপাশি, প্রশাসনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে তিনি আরও বলেন, ‘আমি গত ৩ মাসে উন্নাও থানা ও বিহার থানা বহুবার গিয়েছি। কিন্তু কেউ অভিযোগ নেয়নি। ঘটনার সময় আমি ১০৯০ নম্বরে ফোন করি। ওরা আমায় ১০০ নম্বরে ফোন করতে বলে। সেখানে ফোন করলে বলা হয় যেখানে ঘটনা ঘটেছে সেই থানায় অভিযোগ দায়ের করার জন্য।’ অথচ ওই ঘটনার পর একাধিকবার অভিযুক্তরা বাড়ি বয়ে এসে আমায় হুমকি দিয়ে গিয়েছে। অভিযোগ না করার জন্য।’

উল্লেখ্য, পুলিশি হেনস্থার শিকার হওয়া ওই নির্যাতিতার বাড়ি উত্তরপ্রদেশের সেই সাহসিনীর গ্রামেই শুক্রবার আগুনে পুড়ে মৃত্যু হয়েছে যার। এদিকে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর রীতিমতো সরগোল পড়ে গিয়েছে। তবে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার খবর প্রকাশ্যে এলেও হুঁশ ফেরেনি সরকারের। আপাতত ভয়ঙ্কর কিছু ঘটে যাওয়ার আতঙ্কে তটস্থ উন্নাওয়ের আর এক নির্যাতিতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here