ডেস্ক: রাজ্যজুড়ে চাকরির আকাল। তবে আপনি যদি সরকারি কর্মচারী হতে চান, সেক্ষেত্রে অন্তত পাঁচ বছর ভারতীয় সেনায় চাকরি করতে হবে আপনাকে। তবেই মিলবে সরকারি চাকরি। এখন থেকে এই নিয়মই বাধ্যামূলক করার পথে হাঁটতে চলেছে সংসদীয় কমিটি। পার্লামেন্টের স্ট্যান্ডিং কমিটি তাঁদের এক সুপারিসে জানিয়েছে, রাজ্য বা কেন্দ্রে যুবক যুবতীরা সরকারি চাকরি পেতে গেলে অন্তত পাঁচ বছর সেনাবাহিনীতে কাজ করা করা বাধ্যতামূলক করতে হবে।

সূত্রের খবর, প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তৈরি করা ওই কমিটি চায় কেন্দ্রের কর্মী ও প্রশিক্ষণ বিভাগ এবিষয়ে একটি প্রস্তাব তৈরি করে তা পেশ করুক কেন্দ্রের কাছে। কিন্তু কেন এই নিয়ম চালু করতে চাইছে সংসদীয় কমিটি? জানা গেছে, বর্তমানে ভারতে সেনার ঘাটতি পড়েছে। খালি রয়েছে বহু পদ। আর সেই কারনেই এই নিয়ম চালু হলে সেনার ঘাটতি পূরণ হবে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের রিপোর্ট অনুযায়ী, এই মুহূর্তে প্রয়োজনের তুলনায় সেনা জওয়ানের অভাব রয়েছে প্রায় ২০ হাজার। সেনা অফিসার পদেও ঘাটতি রয়েছে ৭ হাজার। বায়ুসেনাতেও ১৫০ অফিসার ও ১৫ হাজারের বেশী বিভিন্ন পদ খালি রয়েছে। নৌসেনাতেও ঘাটতি রয়েছে ১০ হাজার সেনা ও একশোর উপর অফিসারের পদ।

কমিটির পরিকল্পনা অনুযায়ী, ভারতে শুধুমাত্র রেলওয়েতেই কাজ করেন ৩০ লক্ষ কর্মী। রাজ্যে সরকারি কর্মীর সংখ্যা ২ কোটিরও বেশী। সেক্ষেত্রে এই কর্মীদের যদি ৫ বছরের জন্য সেনায় কাজ করা বাধ্যতামূল্ক করা যায় তবে সেনায় কর্মী ও অফিসারের ঘাটতি কমবে। একইসঙ্গে ফাঁকিবাজ সরকারি কর্মীর সঙ্খ্যাটাও এক ধাক্কায় কমে যাবে। ৫ বছর সেনা প্রশিক্ষনে থাকা যোগ্য কর্মী পাবে রাজ্য ও কেন্দ্র। তবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এবিষয়ে এখনই কোনও উচ্চবাক্য করেনি। যার ফলে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের কাছে এই সুপারিশ পৌছে দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, সরকারি কর্মীদের সেনায় কাজ করা বাধ্যতামূলক এই নিয়ম যদি ভারতে চালু হয় তবে ভারতই প্রথম রাষ্ট্র নয় যেখানে এই নিয়ম চালু হবে। বিশ্বের প্রথম সারির বেশ কিছু দেশেই চালু রয়েছে এই নিয়ম। আমেরিকা, রাশিয়া, ইজরায়েল, সুইডেন, উত্তর কোরিয়া, গ্রিস, তুরস্ক, নরওয়ের মতো দেশগুলিতেও চালু রয়েছে এই নিয়ম। সেখানে সরকারি চাকরি করতে গেলে কিছু বছরের জন্য বাধ্যতামূলকভাবে সেনাতে কাজ করতে হয়। তবে ভারতে কবে এই নয়া নিয়ম চালু হবে তা সময় বলবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here