jamia milia news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে রবিবার থেকেই উত্তাল দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়। ছাত্র আন্দোলন থামানোর নামে কার্যত ক্যাম্পাসে ঢুকে নির্বিচারে লাঠি, কাঁদানে গ্যাস চালিয়েছে পুলিশ। দিল্লি পুলিশের এই ‘গুন্ডাগিরি’ নিয়ে সরব দেশের সকল মানুষ। আর এই কাণ্ড নিয়ে এবার মুখ খুললেন প্রাক্তন ভারতীয় পেসার ইরফান পাঠান।

নিজের টুইটার প্রোফাইলে পাঠান লেখেন,

‘রাজনৈতিক দোষারোপের খেলা চলতেই থাকবে। কিন্তু আমি আর আমাদের দেশের সকলে জামিয়া মিলিয়ার ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য শঙ্কিত।’

রবিবার দুপুর থেকেই দক্ষিণ দিল্লির জামিয়া সংলগ্ন এলাকায় বিক্ষোভ শুরু হয়। নিউ ফ্রেন্ডস কলোনি, মাতা মন্দির রোড, মথুরা রোডে পুলিশের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ বাধে বিক্ষোভকারীদের। বেপরোয়া লাঠি চালায় পুলিশ। বেশ কিছু বাইক ও দিল্লি পরিবহণ নিগমের তিনটি বাস জ্বালিয়ে দেন বিক্ষোভকারীরা। অনেকের অভিযোগ, পুলিশ নিজেই বাসে আগুন ধরিয়েছে। আগুন নেভাতে গিয়ে আক্রান্ত হন দমকলকর্মীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ওই চত্বরে মেট্রো রেলের একাধিক স্টেশন বন্ধ করে দেওয়া হয়।এর পরেই পুলিশ জামিয়া ক্যাম্পাসে চড়াও হয়। ক্যাম্পাসের গেটে বেধড়ক লাঠিপেটা করার পাশাপাশি বেশ কয়েক জনকে আটকও করা হয়। পুলিশ অবশ্য কারও পরিচয় জানায়নি। জামিয়ায় পুলিশি তাণ্ডবের প্রতিবাদে রাতেই জেএনইউ-সহ একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা দিল্লি পুলিশের সদর দফতর ঘেরাও করেন।

রবিবার বিকেলে দক্ষিণ দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া সংলগ্ন নিউ ফ্রেন্ডস কলোনিতে বিক্ষোভের পরে দিল্লি পুলিশ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ঢুকে ছাত্রছাত্রীদের উপরে চড়াও হয়। জামিয়ার ক্যাম্পাসের মধ্যে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরিতে কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়। সে সময় বহু ছাত্রছাত্রী সেখানে পড়াশোনা করছিলেন। তাঁদের অনেকেই পুলিশের লাঠি ও কাঁদানে গ্যাসে আহত হন। অভিযোগ, শৌচাগারে ঢুকেও পড়ুয়াদের যথেচ্ছ পিটিয়েছে পুলিশ। বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মীদেরও বেধড়ক লাঠিপেটা করা হয়। লাইব্রেরির বাইরের ছাত্রছাত্রীদের মাথার উপরে হাত তুলে লাইন দিয়ে হাঁটিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বার করে দেওয়া হয়। জামিয়ার বেশ কয়েক জন ছাত্রছাত্রীকে পুলিশ আটক করে বলে অভিযোগ। পুলিশের এই আচরণে ক্ষুব্ধ পড়ুয়াদের প্রশ্ন, ‘আমরা কি দাগি অপরাধী?’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here