ডেস্ক: জোট বেঁধে কর্ণাটকে সরকার গঠন হয়েছে এক সপ্তাহও হয়নি। তার মধ্যে জোট সঙ্গীদের মধ্যে বিভেদ স্পষ্ট হতে শুরু করেছে এই দক্ষিনী রাজ্যে। আস্থা ভোটে ১১৭ জন বিধায়কের সমর্থন পেলেও আরেকটি আসনে নির্বাচন আসতেই কংগ্রেস-জেডিএস নতুন রঙ দেখান শুরু করেছে। দু’দিন পর ২৮ মে কর্ণাটকের রাজরাজ্যেশ্বরী নগরের আসনে নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু এর আগেই মৈত্রীর সুরে না গেয়ে যুযুধানে নেমে পড়েছে উভয় পক্ষ।

ঘটনা হল, কর্ণাটকে বিধানসভা আসনের সংখ্যা ২২৪টি হলেও ২২২টি আসনে ভোট গ্রহণ হয়েছিল। রাজরাজ্যেশ্বরী নগর এবং জয়নগরের আসনের নির্বাচন স্থগিত রাখা হয়েছিল। জয়নগরে নির্বাচনের আগেই বিজেপি প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে স্থগিত হয়ে যায় নির্বাচন। অন্যদিকে, রাজরাজ্যেশ্বরী নগরে ভোটের আগেই কয়েক হাজার ভোটার কার্ড উদ্ধার হওয়ায় সেখানেও স্থগিত করে দেওয়া হয় নির্বাচন।

দুই দলের জোটের সিদ্ধান্ত হওয়ার পরই এই জল্পনা শুরু হয়েছিল যে কংগ্রেস না জেডিএস কে ব্যাকফুটে আসবে। নির্বাচন হতে আর বাকি মাত্র কয়েক ঘন্টা। কিন্তু এর আগেই কংগ্রেস ও জেডিএস বিধায়ক একে অন্যের বিরুদ্ধে অস্ত্রে শান দিচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে দুই দলের লড়াই আরও উত্তেজনা তৈরি করেছে। কারণ ইতিপূর্বে মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী বলেছিলেন, কংগ্রেস ও জেডিএস এখন থেকে জোট বেঁধেই নির্বাচন লড়বে। কিন্তু নতুন করে নির্বাচনেই পোল খুলে গিয়েছে এই দুই জোটের। জয়নগরের আসনে এই দুই দল জোট বাঁধলেও রাজরাজ্যেশ্বরী নগরে আলাদা আলাদাই লড়াই করছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here