মহানগর ওয়েবডেস্ক: গত মঙ্গলবার রাতে এক ফেসবুক পোস্ট ঘিরে উত্তাল হয় বেঙ্গালুরু। শহরের একাধিক অংশ কার্যত দাপিয়ে বেড়ায় কট্টর মৌলবাদীরা। সেই ঘটনায় রাজ্যের প্রাক্তন কংগ্রেস মন্ত্রী কেজি জর্জের ঘনিষ্ট এক নেতাকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ওই ব্যক্তির নাম কালিম পাশা, তার স্ত্রী আবার নাগোয়ারা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর।

বেঙ্গালুরুর যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) সন্দীপ পাটিল জানিয়েছেন, ১১ আগস্টের হিংসার ঘটনায় আরও ৬০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এখনো পর্যন্ত এই নিয়ে ২০৬ জনকে গ্রেফতার করা হল। এছাড়া ঘটনার তদন্তে জন্য চারটি বিশেষ টিম গঠন করা হয়েছে। হিংসার পিছনে সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি অফ ইন্ডিয়ার (এসডিপিআই) ভূমিকাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ওই পার্টিকে নিষিদ্ধ করা হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন রাজ্যের উপ মুখ্যমন্ত্রী সিএনএ নারায়ণ। ইতিমধ্যেই হিংসায় মদত দেওয়ার অভিযোগে চার এসডিপিআই সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে করা ফেসবুকে একটি পোস্ট ঘিরে উত্তাল হয়ে ওঠে বেঙ্গালুরু। কংগ্রেসের বিধায়ক শ্রীনিবাস মূর্তী’র এক নিকট আত্মীয়ের করা ওই ফেসবুক পোস্টটি মুসলিম সম্প্রদায়ের ভাবাবেগকে আহত করেছে বলে অভিযোগ। এই পোস্টের জেরে ছড়িয়ে পড়া হিংসার ঘটনায় তিন ব্যক্তির মৃত্যু হয়। যার করা ফেসবুক পোস্ট নিয়ে এই হিংসার ঘটনা ঘটেছে তাকে পুলিশ গ্রেফতার করে। একই সঙ্গে হিংসা ছড়ানো, পাথর ছোড়া ও পুলিশকে আক্রমণ করার অভিযোগে ২০৬ জন ব্যক্তিকেও গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানানো হয় পুলিশ সূত্রে। উন্মত্ত জনতাকে ছত্রভঙ্গ করার জন্য পুলিশ লাঠি চালায় এবং টিয়ার গ্যাস ও গুলি ছোড়ে। বিক্ষোভকারীরা বিধায়কের বাড়িতে হামলা চালিয়ে একাধিক গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here