ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কংগ্রেস মুক্ত ভারত গড়ার ডাক বহুদিন আগেই দিয়েছিলেন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময় উপনির্বাচন খেলার মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে। আঞ্চলিক শক্তিগুলির ভরসায় ধীরে ধীরে পায়ের তলার মাটি খুঁজে পাচ্ছে কংগ্রেস। অন্যদিকে, জাতীয় রাজনীতির ময়দানে নিজেদের গুরুত্ব বুঝতে শুরু করেছে রাজ্যভিত্তিক দলগুলি। ফলে ২০১৯-এর বৈতরণী পেরোতে মুষ্টিমেয় দলের সঙ্গে এককাট্টা হওয়াই হবে কংগ্রেসের একমাত্র পন্থা।

কিন্তু গুটিকতক এই বিরোধীদের মধ্যে বহুজন সমাজবাদী পার্টির নেত্রী মায়াবতীই কংগ্রেসের ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত করতে সবচেয়ে বড় ভুমিকায় নিতে পারেন। এর কারণ কেবল ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচন নয়। তার আগে চলতি বছরে ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানের বিধানসভা নির্বাচনে বিএসপি হয়ে উঠতে পারে ‘কিংমেকার’। ঠিক যেমন কর্ণাটকে দেবগৌড়ার দল জেডিএস নির্বাচন শেষে হয়ে উঠেছিল। মায়াবতীকে কাছে টানতে কংগ্রেস যে অবশ্য নিরলস চেষ্টা করে যাচ্ছে তার প্রমাণ কুমারস্বামীর শপথগ্রহণের মঞ্চেই মিলেছিল। বিএসপি নেত্রীর সঙ্গে সোহাগ দেখিয়ে মাথায় মাথা ঠেকিয়েছিলেন সনিয়া গান্ধী। ফলে বর্তমান পরিস্থিতির জেরে মনে করা হচ্ছে, এই তিন রাজ্যে মায়াবতীর বিএসপির সঙ্গে জোট বেঁধে লড়বে রাহুলের কংগ্রেস।

২০১৩ সালের বিধানসভা নির্বাচনে এই তিন রাজ্যেই পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল বিজেপি। কিন্তু বিগত কয়েকমাসে বিশেষ করে রাজস্থানে সরকারের বিরুদ্ধে যেভাবে প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়া বইতে শুরু করেছে, তাতে আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন রাহুল গান্ধী ও প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সচিন পাইলট। ২০১৩র বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি কংগ্রেসকে দুরমুশ করলেও ৩টি আসন জিতেছিলেন মায়াবতী। বসপার এই খুচরো আসন নিজেদের দিকে টানতেই রাজস্থানে মায়াবতীর সঙ্গে জোট করেই লড়তে চাইবে কংগ্রেস।

অন্যদিকে, ছত্তিশগড় ও মধ্যপ্রদেশেও গত বিধানসভা নির্বাচনে মুখ থুবড়ে পড়েছিল কংগ্রেস। কিন্তু উভয় রাজ্যেই ১টি ও ৪টি করে আসন ২০১৩ সালে পেয়েছিল মায়াবতীর দল। বসপার এই খুচরো আসনের ফ্যাক্টরকে কাজে লাগিয়েই এই তিন রাজ্যে বিজেপিকে হারাতে কোমর বেঁধেছে রাহুল গান্ধীর দল। কারণ তিনটি রাজ্যের প্রতিটিতেই অল্প আসন সহ ৪-৭ শতাংশ ভোট বিএসপির ঝুলিতে গিয়েছে। সেই ভোটগুলি যদি কংগ্রেসের দখলে চলে আসে তবে ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগে বিজেপির উপর আশঙ্কার কালো মেঘ ঘনিয়ে আসবে তা অবশ্যম্ভাবী।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here