নিজস্ব প্রতিবেদক, সিউড়ি: কিছুদিন আগেই বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে চটুল গানের তালে অধ্যক্ষের নাচে বুদ্ধিজীবিমহলে ওঠে সমালোচনার ঝড়। এবার সেই বীরভূমেই গান্ধী জয়ন্তীর অনুষ্ঠানে হিন্দি গানের তালের কোমর দুলিয়ে বিতর্কে জড়ালেন কংগ্রেস বিধায়ক। বীরভূমের নলহাটি 2 নম্বর ব্লকের লোহাপুর গ্রামে গান্ধী জয়ন্তী উপলক্ষ্যে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেই অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিলেন কংগ্রেস বিধায়ক মিল্টন রশীদ। অনুষ্ঠানে নলহাটি 2 নম্বর ব্লকের একাদশ শ্রেণির পড়ুয়াদের সম্বর্ধনা দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠান শেষে একটি হিন্দি গানের সাথে তাল মিলিয়ে নাচ করতে শুরু করেন বিধায়ক মিল্টন রশীদ। গান্ধীজির মত এক মহান ব্যক্তিত্বের জন্মদিনে একজন কংগ্রেস বিধায়কের এই এ হেন উদাম নৃত্য ভালো চোখে দেখেন নি রাজনৈতিক মহল। যদিও এতে একেবারেই অনুতপ্ত নন কংগ্রেস বিধায়ক। নিজের সাফাইয়ে গান্ধীজির বানি টেনে এনে তিনি বলেন, “আমার কাছে তো পাচন নেই, নাচন আছে। গান্ধীজি বলেছিলেন মানুষকে আনন্দ দাও, গান যদি মানুষকে আনন্দ দেওয়ার একটি মাধ্যম হয়ে থাকে, তাহলে নাচ অপর একটি মাধ্যম। সাধারণ মানুষ চেয়েছিল আমি আমার বিধায়ক সত্তাকে সরিয়ে নাচ করি, তাই আমি নাচ করেছিলাম, নাচ করার সাথে আমি যে বিধায়ক তার কোন সম্পর্ক নেই।”” বিধায়কের এ হেন পদ্ধতিতে নিজেকে আড়াল করার প্রচেষ্টা সত্ত্বেও রাজনৈতিক মহলের সমালোচকরা কিন্ত সমালোচনা করতে ছাড়ছেন না।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here