নিজস্ব প্রতিবেদক, বহরমপুর: এক কলেজ পড়ুয়ার ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ালো মুর্শিদাবাদ জেলার সদর শহর বহরমপুরে। মৃত ছাত্রের নাম পিযুষ মার্জিত(২১)। সে বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। বাড়ি বীরভূম জেলার নলহাটি থানার গোকুলপুর নোয়াপাড়া গ্রামে। বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে বহরমপুর জজকোর্ট সংলগ্ন একটি ছাত্রাবাসে। মৃত ছাত্রের পরিবারের তরফ থেকে অভিযোগ তাকে খুন করা হয়েছে।

সূত্রের খবর বৃহস্পতিবার সকালে ছাত্রাবাসের অনান্য ছাত্ররা পিযুষ মার্জিতের ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পেয়ে খবর দেয় ছাত্রাবাসের মালিক পার্থসারথি পালকে। তিনি এসে ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। খবর দেওয়া হয় ববহরমপুর থানাতেও। মৃত ছাত্রের বাবা দীপক মার্জিত অন্য ছাত্রদের কাছ থেকে ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে ছুটে আসেন বহরমপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। তিনি জানান বুধবার রাত্রি ৮টা পর্যন্ত ছেলের সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছে। কিন্তু ছেলের কথার মধ্যে কোন অস্বাভাবিকতা বা অসংলগ্নতা লক্ষ্য করেন নি।

তিনি দাবী করেন ছেলে আত্মহত্যা করেনি। তাকে খুন করে প্রমান লোপাটের জন্য গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মৃত ছাত্রের ছাত্রাবাসের সহপাঠিরা দাবী করেন পিযুষের মানসিক রোগের চিকিৎসা চলছিল। সে মানসিক রোগের ওষধ খেত। অন্যদিকে ছাত্ররা আরো দাবী করেন, প্রনয় ঘটিত কারনেও ওই ছাত্র আত্মহত্যা করতে পারে। পুলিস মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তে পাঠিয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্ত করছে বহরমপুর থানার পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here