kolkata ews

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা: আমফানের ক্ষতিগ্রস্তদের টাকা বিলি নিয়ে গোটা রাজ্য জুড়ে তীব্র অসন্তোষ চলছে। প্রত্যেক জায়গায় অভিযোগ উঠছে শাসক দলের ঘনিষ্ঠ লোকজনকে সেই টাকা পাইয়ে দিয়েছেন পঞ্চায়েত প্রধান। সেই সব জায়গায় আবার প্রধানের এমন কাজের প্রতিবাদ করে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন দলের সদস্যরা। নিজের দলের প্রধানের এম কাজের সমালোচনা করার ঘটনা পরপর কয়েকটি জায়গায় ঘটেছে এই রাজ্যে। আর এই দুর্নীতির কথা সামনে আসতেই বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে কয়েকজকে শো-কজ করা হয়েছে শাসকদল তৃণমূলের তরফে।

এবার আবার একই রকম ঘটনা ঘটল। প্রকাশ্যে এল তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। আজ ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসকের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগে পুরসভায় অবস্থান বিক্ষোভ দেখান দলের প্রাক্তন কাউন্সিলররা। এই ঘটনাকে দলবিরোধী পদক্ষেপ বলে দাবি করেছেন পুরসভার প্রশাসক নীহাররঞ্জন ঘোষ। পুরসভার বিদায়ী কাউন্সিলররা আজ দুপুরে জেলাশাসকের কাছে পুরসভার প্রশাসক নীহাররঞ্জন ঘোষের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ জানান। পরে তাঁরা সকলেই পুরসভায় প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করতে যান। তবে পুরসভায় প্রশাসক কিংবা প্রশাসক বোর্ডের কোনও সদস্যকে না পেয়ে সেখানেই অবস্থান বিক্ষোভে শামিল হতে বাধ্য হন বলে দাবি করেছেন প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও বিদায়ী কাউন্সিলর নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি।

নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি বলেন, পুরসভার প্রশাসকের বিরুদ্ধে আমরা বিদায়ী কাউন্সিলররা ধরনায় বসেছি৷ কারণ, তিনি নিজের কাজ করতে ব্যর্থ হয়েছেন৷ করোনা পরিস্থিতিতে পুরসভার বাসিন্দারা সঠিক পরিষেবা পাচ্ছেন না। এনিয়ে আজ আমরা জেলাশাসকের কাছেও অভিযোগ জানিয়েছি। পুরসভাতেও সেই অভিযোগ জানাতে এসেছিলাম। কিন্তু পুরসভায় কাউকে না পেয়ে অবস্থানে বসেছি। বিষয়টি নিয়ে আমরা দলীয় নেতৃত্বকেও জানিয়েছি।

তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ প্রসঙ্গে পুরসভার প্রশাসক নীহাররঞ্জন ঘোষ বলেন, আমার কাছে এখনও অভিযোগ আসেনি। কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা জানা নেই। তবে দলের লোকজন যদি এই কাজ করে থাকেন, তবে তাঁরা দলবিরোধী কাজ করেছেন। পুরসভাকে কলঙ্কিত করার জন্য এসব ঘটনা ঘটাচ্ছেন তাঁরা। সমস্ত বিষয়টি দলীয় নেতৃত্বকে জানাবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here