নিজস্ব প্রতিবেদক, মেদিনীপুর: পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রাক্তন পুলিশ কর্তা ভারতী ঘোষ ও তাঁর নিরাপত্তাকর্মী সুজিত মন্ডলের বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি প্রত্যাহারের আবেদনের শুনানি আগামিকাল অর্থাত বুধবার ৷ মেদিনীপুর আদালতে সিআইডির আইনজীবি ও ভারতীর আইনজীবির উভয়পক্ষের উপস্থিতিতে এই শুনানি হবে ৷ গত ২ এবং ৬ অক্টোবরে মেদিনীপুর আদালতে ভারতীর আইনজীবি অপূর্ব চক্রবর্তী এই আবেদন করেছিলেন ৷

গত এক বছরের বেশি সময় ধরে প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে নানা দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সিআইডি তদন্ত শুরু করেছে ৷ জেলার দাসপুর থানার এক সোনার ব্যাবসায়ীর করা অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতী ঘোষ ও তাঁর ঘনিষ্ঠ পুলিশ অফিসারদের বিরুদ্ধে প্রতারণা মামলা শুরু হয়েছিল ৷ তারপর থেকে এক এক করে ৫ টি বিভিন্ন মামলা শুরু হয়েছে ভারতীসহ তাঁর নিরাপত্তা রক্ষী ও ঘনিষ্ঠ পুলিশ অফিসারদের বিরুদ্ধে ৷ ভারতীকে না পেয়ে তাঁর স্বামী এম ভি রাজুকে হিসাব বহির্ভুত আয়ের মামলাতে গ্রেফতার করেছিল সিআইডি ৷ বর্তমানে তিনি জামিনে রয়েছেন ৷ বাকি পুলিশ কর্তারাও জামিনে রয়েছেন ৷ কেবলমাত্র ভারতী ঘোষ ও তাঁর দেহরক্ষী সুজিত মণ্ডল ফেরার রয়েছে ৷ এই ফেরার দেখিয়ে সিআইডি মেদিনীপুর আদালত থেকে ভারতীদের বিরুদ্ধে হুলিয়া জারির নির্দেশ নামা পেয়েছিল ৷ তারপর থেকে সুপ্রিম কোর্টের মাধ্যমে ১ অক্টোবর ভারতী ঘোষ নিজের গ্রেফতারী পরোয়ানাতে স্থগিতাদেশ পেয়েছেন ৷

এই গ্রাউন্ড দেখিয়ে গত ২ অক্টোবরে ভারতী ঘোষের দেহরক্ষী সুজিত মন্ডলের হয়ে হুলিয়া প্রত্যাহারের আবেদন করা হয় ৷ পরে একইভাবে ৬ অক্টোবরে ভারতী ঘোষের হয়ে তাঁর আইনজীবি অপূর্ব চক্রবর্তী হাজিরা দিয়ে ওকালতনামা জমা করে হুলিয়া প্রত্যাহারের আবেদন করেন ৷ বুধবার সেই আবেদনের শুনানী ৷ অন্যদিকে গত ১ অক্টোবরে জামিন পাওয়া ভারতী ঘোষের স্বামী এম ভি রাজু মঙ্গলবার মেদিনীপুর আদালতে হাজিরা দিতে উপস্থিত হন ৷ তিনি আদালতের নির্দেশে নিজের নাম ঠিকানা নিজের হাতে লিখে এদিন মেদিনীপুর আদালতে জমা করেছেন ৷ আইনজীবি অপূর্ব চক্রবর্তী বলেন “ সুপ্রিম কোর্টের মাধ্যমে যেখানে মামলা লড়ে স্থগিতাদেশ পাচ্ছেন ভারতী ঘোষ ,সেখানে আইনত তিনি ফেরার বলা যায় না ৷ সেই গ্রাউন্ড থেকেই তাঁদের বিরুদ্ধে হুলিয়া প্রত্যাহারের আবেদন করেছি ৷ বুধবার সিআইডির সামনেই তার শুনানী হবে ৷ ”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here