kolkata news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতা করতে এবার বামেদের সঙ্গে পথে নামল কংগ্রেস। এদিন মহা মিছিলের ডাক দেওয়া হয়েছে দুই পক্ষের তরফ থেকেই। তবে আলাদা আলাদা ভাবে নয়। এদিন একসঙ্গে দেখা যায় বামফ্রন্ট ও প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বদের। বেলা আড়াইটায় সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার থেকে মিছিল শুরু হয় । শেষ হয় মহাজাতি সদনের সামনে। মিছিলে ছিলেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু, সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র, বিধায়ক সুজন চক্রবর্তী প্রমুখ । কংগ্রেসের পক্ষ থেকে মিছিলে ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র, শুভঙ্কর চক্রবর্তীরা । মিছিল শেষে তাঁরা মহাজাতি সদনের সামনে বক্তব্য রাখেন ।

এদিনের মিছিল করে বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তীর বলেন, ‘আমরা আগে পৃথক মিছিল করেছি । কংগ্রেসও তাদের মতো করে পথে নেমেছে । আজ একসঙ্গে মিছিল হল ।’ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র বিধানভবনের সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন । কেন তিনি পদত্যাগ করবেন না ? কেনই বা তাঁকে ইমপিচ করা হবে না ?’

কিছুদিন আগেই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতা করে রাস্তায় নামে কংগ্রেস। যদিও কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র দিল্লিতে থাকার কারণে মিছিলে উপস্থিত থাকতে পারেন নি সেই মিছিলে। তবে এ দিনের মিছিলে উপস্থিত ছিলেন তিনি। এদিকে কিছুদিন আগেই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতা করে কর্পোরেশনের বিজেপি কাউন্সিলরদের ঘরের সামনে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিলিপি পোড়ান কংগ্রেসের কাউন্সিলর প্রকাশ উপাধ্যায়।

অন্যদিকে একইভাবে কিছুদিন আগেও কংগ্রেসের মতোই পথে নামে বামেরা। চলে পর পর বিক্ষোভ। এদিন ও বিকেলে সিএএ এর বিরোধিতা করে পথে নামার ডাক দেয় এসইউসিআই। প্রতিবাদ জানানোর পাশাপাশি আগামী ৮ জানুয়ারি বনধ সমর্থন করারও দাবি জানানো হয় বামফ্রন্টের তরফ থেকে।

সিএএ গুরুত্ব বোঝাতে মরিয়া রাজ্য বিজেপি। জাতীয় নাগরিকপঞ্জী ও নাগরিক সংশোধনী আইনের দ্বারা জনমানসের মধ্যে যে বিরূপ প্রভাবের সৃষ্টি হয়েছে, তা কাটিয়ে উঠতে উদ্যোগী হয়েছে রাজ্য বিজেপি। তাই জাতীয় নাগরিকপঞ্জী ও নাগরিক সংশোধনী আইনের সমর্থনে আন্দোলনের মাত্রা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  এছাড়াও রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে হচ্ছে সভা-সমাবেশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here