ডেস্ক: পঞ্চায়েত মামলায় ফের কাঠগড়ায় রাজ্য নির্বাচন কমিশন৷ সোমবার সিপিএম তথা বামেদের করা পঞ্চায়েত সংক্রান্ত একটি মামলায় ফের হাইকোর্টের তোপের মুখে নির্বাচন কমিশন৷ এদিন সব পক্ষের সওয়াল-জবাবের পর তিরস্কারের ভাষায় হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দার কমিশনের আইনজীবীকে উদ্দেশে করে বলেন, ‘কমিশনের এখনও ঘুম ভাঙেনি।’ আর কমিশনকে কেন্দ্র করে আদালতের এহেন মন্তব্যেপ পর নিন্দুকরা মুচকি হেসে বলছেন, অস্তিত্ব সঙ্কটে থাকা বামেরাও এখন চমকাচ্ছে নির্বাচন কমিশনকে৷

উল্লেখ্য, হাইকোর্টে পঞ্চায়েত সংক্রান্ত পৃথক একটি মামলায় মুখ পুড়ল নির্বাচন কমিশনের৷ ই-মেলের মাধ্যমে জমা দেওয়া মনোনয়ন গ্রহণ করার আর্জি নিয়ে নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিল বামেরা। এদিন হাইকোর্টে বিশ্বনাথ সমাদ্দারের ডিভিশন বেঞ্চে ছিল সেই মামলার শুনানি। বামেদের পক্ষ থেকে আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য সওয়াল করেন, ভাঙড়ে বিরোধী প্রার্থীরা মনোনয়য়ন জমা দেওয়ায় বাধা পাওয়ার পর হোয়াটস অ্যাপে তা দাখিল করে। এবং হাইকোর্টের নির্দেশে নির্বাচন কমিশন সেই মনোনয়নকে বৈধতা দিতে বাধ্য হয়। এই ঘটনা রেশ ধরে বিকাশবাবু ই-মেলের মাধ্যমে জমা দেওয়া বামপ্রার্থীদের মনোনয়নকে স্বীকৃতি দেওয়ার দাবি জানান। সেইসঙ্গে বিচারপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য জানিয়ে দেন, নির্বাচন কমিশনকে ইতিমধ্যেই ই-মেলের মাধ্যমে মনোনয়ন জমা দেওয়া বামপ্রার্থীদের তালিকা তুলে দেওয়া হয়েছে।

বামেদের আইনজীবীর সওয়ালের জবাবে নির্বাচন কমিশনের আইনজীবী নয়ন বিয়ানি দুটি ফাইল দেখিয়ে আদালতে জানান শনিবার বামেদের দেওয়া তালিকা তাঁরা হাতে পেয়েছেন। এর পরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন বিচারপতি বিশ্বনাত সমাদ্দার। কমিশনের আইনজীবীকে তীব্র ভর্ৎসনা করে তিনি বলেন, ফাইল দেখিয়ে কী প্রমাণ করতে চাইছে কমিশন? কী এমন কোনও শক্ত কঠিন কাজ ছিল যা একদিনের মধ্যে দেখা সম্ভব হয়ে উঠল না? এভাবে একের পর এক মামলায় কার্যত কমিশনের দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় মিলছে বলেই মনে করছে আদালত৷ মঙ্গলবার ফের এই মামলার শুনানি হবে বিচারপতি সমাদ্দারের বেঞ্চে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here