jawan

ডেস্ক: জম্মু-কাশ্মীর হোক বা দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চল- নিজেদের জীবন তুচ্ছ করে দেশের জন্য লড়াই করছেন জওয়ানরা। এবার সীমান্তের লড়াইকে পিছনে ফেলে নিজের রক্ত দিয়ে সংকটাপন্ন এক মা ও সদ্যোজাতকে বাঁচিয়ে মানবিকতার নজির গড়লেন জম্মু-কাশ্মীরে কর্তব্যরত সিআরপিএফ জওয়ান গোহিল শৈলেশ। তারপর গোহিল নিজেই ঘটনাটি জানিয়ে ‘রক্তের সম্পর্ক’ শিরোনাম দিয়ে তাঁর এবং সদ্যোজাতটির একটি ছবি টুইটারে পোস্ট করেছেন। ছবিটির নীচে লেখা, ‘তাঁর রক্ত এক মা, এক শিশু, এক পরিবারকে বাঁচিয়েছে এবং জীবনের একটি বন্ধন গড়েছে।’ গোহিলের এই পোস্টটি ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। সিআরপিএফ জওয়ানের এই ভূমিকায় টুইটারে প্রশংসার বন্যা বয়েছে।

সিআরপিএফ-এর ৫৩ ব্যাটেলিয়নের জওয়ান গোহিল শৈলেশ বর্তমানে জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় কর্তব্যরত। সম্প্রতি পুলওয়ামার গুলশানপোরা গ্রামের এক যুবতির সন্তান জন্ম দেওয়ার পর প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। সদ্যোজাতটিরও অবস্থা সংকটজনক হয়ে ওঠে। তাঁদের বাঁচাতে হাসপাতালের চিকিত্সক রক্তের প্রয়োজনের কথা জানালে যুবতিটির পরিবার সেনা হেল্পলাইন ‘মাদাদগার’-এর দ্বারস্থ হয়। গোহিল শৈলেশ তা জানতে পেরে নিজেকে কেবল সীমান্তে শত্রুপক্ষের লড়াইয়ের মধ্যে ধরে রাখতে পারেননি। যুবতিটির পরিবারের সাহায্য প্রার্থনায় সাড়া দিয়ে মা ও সদ্যোজাতকে রক্ত দিতে হাসপাতালে ছুটে যান। তারপর তাঁর রক্ত নিয়েই নতুন জীবন পান ওই যুবতি এবং তাঁর সন্তান। ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই সেনা জওয়ান থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ টুইটারে গোহিলকে ‘স্যালুট’ জানান।

প্রসঙ্গত, জম্মু-কাশ্মীরের নাগরিকদের সমস্ত রকম সহায়তা দেওয়ার জন্য ২০১৭ সালের ১৬ জুন সিআরপিএফ ‘মাদাদগার’ হেল্পলাইনটি চালু করে। এই হেল্পলাইনের মাধ্যমে বহু মানুষ উপকৃত হয়েছেন। প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিধ্বস্ত মানুষদের ত্রাণ, আশ্রয় দেওয়া থেকে শুরু করে ‘মাদাদগার’-এ সাহায্যপ্রার্থী সকলকে সমস্ত রকম সহায়তা দিতে এগিয়ে গিয়েছে সিআরপিএফ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here