news national

ডেস্ক: ১৪ তারিখ কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে আত্মঘাতী জঙ্গি হামলার ঘটনা দেশবাসী এখনও ভুলতে পারেননি। এই হামলায় শহীদ হয়েছেন ৪০ জন জওয়ান। এবার এই হামলায় শহীদ হওয়া জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাতে হোলি উৎসব পালন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিআরপিএফ।

গতকাল সিআরপিএফ প্রতিষ্ঠার ৮০ বছর পূর্ণ হয়েছে। এখানে দাঁড়িয়ে ডিরেক্টর জেনারেল আর আর ভাটনাগর জানান যে, পুলওয়ামায় আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায় শহীদ হওয়া শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে আগামী ২১ মার্চ হোলি না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সীমান্তে থাকা জওয়ানরা। এর পাশাপাশি এদিন তিনি আরও বলেন, উপত্যকায় সন্ত্রাসকে কড়া হাতে দমন করা সত্যিই এখনও বড়সড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যত দিন যাচ্ছে কাশ্মীর আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। কিন্তু ২০১৮ সালে প্রায় ২১০ জঙ্গিকে নিকেশ করেছেন সিআরপিএফ জওয়ানরা। শুধু জঙ্গি দমন নয়, নকশাল বা মাওবাদী হামলা আগের থেকে প্রায় ৪০ শতাংশ কমে গিয়েছে। তবে ছত্তিসগড়ের এখনও বেশকিছু জায়গায় সমস্যা রয়েছে।

 

এদিনের এই অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। প্যারেড গ্রাউন্ডে দাঁড়িয়ে ডোভাল বলেন, “দেশ এটা খুব ভালোভাবে জানে যে কখন, কোথায়, কী করতে হবে। আমরা পুলওয়ামা হামলার বদলা নিয়েছি। যতদিন বেঁচে থাকব ততদিন আমরা এই পুলওয়ামা হামলার ঘটনাকে ভুলতে পারব না। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে আমি এই আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায় শহীদ ৪০ জন জওয়ানকে শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। গোটা দেশ এই ঘটনা কোনওদিন ভুলবে না। আমাদের দেশের নিরাপত্তাবাহিনী এটা খুব ভালোভাবে জানে যে কখন কোথায় কীভাবে হামলা করতে হবে। আমরা সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে লড়াই করব।”” তিনি আরও বলেন, “”এটা খুবই গর্বের কথা যে আমাদের দেশের সিআরপিএফ বাহিনী ৮০ বছর পূর্ণ করেছে। আমাদের দেশের এই একটিমাত্রই বাহিনী আছে যে কিনা দেশকে প্রায় ৩২ লাখ বর্গকিমিজুড়ে সুরক্ষা প্রদান করে আসছে। এই বাহিনীকে নিয়ে আমরা প্রত্যেকেই ভীষণ গর্ববোধ করি। দেশের এমন একটাও জায়গা নেই যেখানে সিআরপিএফ বাহিনীর দেখা মেলে না। দেশভাগের সময় বাহিনী যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেছিল।”””

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here