news international

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নোভেল করোনা ভাইরাসের দাপটে চিনের থেকেও খারাপ অবস্থা ইতালির। বিশ্বের অন্যতম উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও করোনায় সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গিয়েছে ইতালিতে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার কোনও লক্ষণই নেই সেখানে। পুরোপুরি ভেঙে পড়েছে ইতালির স্বাস্থ্যব্যবস্থা। প্রতিদিন এত বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন যে তাদের চিকিৎসা করার মতো ডাক্তার বা নার্স নেই ইতালিতে। এহেন পরিস্থিতিতে ইউরোপীয় এই দেশের পাশে এসে দাঁড়ালো কিউবা। হেলথ কিট বা মাস্ক নয়, করোনার সঙ্গে লড়াই করতে একদল ডাক্তার ও নার্সদের ইতালিতে পাঠাল ফিদেল কাস্ত্রোর দেশ।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই ৫২ জন ডাক্তার ও নার্সের একটি দল ইতালিতে পৌঁছে গিয়েছেন। ইতালির বিপদে সেখানকার ডাক্তারদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করবেন তাঁরা। তবে এবারই প্রথম নয়। ১৯৫৯ সালে দেশে কমিউনিস্ট বিপ্লবের পর থেকেই এই কাজ করে এসেছে সেই দেশের সরকার। তারা প্রশিক্ষিত ডাক্তার ও নার্সদের নিয়ে একটি দল গঠন করেছে। যখনই বিশ্বের কোনো দেশ স্বাস্থ্য পরিষেবার দিক থেকে সমস্যায় পড়েছে, তখনই সেখানে ছুটে গিয়েছেন কিউবান ডাক্তার ও নার্সরা। এর আগে হাইতিতে কলেরা ও আফ্রিকায় ইবোলা মহামারীর আকার ধারণ করলে সেখানেও গিয়েছিলেন এরা।

তবে করোনা মোকাবিলায় শুধু ইতালি নয়, ভেনেজুয়েলা, নিকারাগুয়া, গ্রানাডা, সুরিনামে ও জামাইকায় মেডিক্যাল টিম পাঠিয়েছে কিউবা। ইতালির উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়ার আগে লিওনার্দো ফার্নান্দেজ জানান, ‘অবশ্যই আমার ভয় লাগছে। কিন্তু সেই ভয় এখন দূরে সরিয়ে রাখতে হবে। আমাদের একটি দায়িত্ব আছে যেটা পূরণ করতে হবে। যে বলবে এই সময়ে তার ভয় করে না সে এখন সুপারহিরো। আমরা কেউ সুপারহিরো নই। আমরা বিপ্লবী ডাক্তার।’

ইতালিতে এখনও পর্যন্ত করোনার প্রভাব সবচেয়ে বাজে ভাবে পড়েছে। সেখানে এখনো পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫৯ হাজার ছাড়িয়েছে। প্রাণ হারিয়েছেন ৫,৪৭৬ জন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here