কোথাও ধামসা মাদল নিয়ে, কোথাও বা পোস্টার দিয়ে, কোথাও আবার বাড়ি গিয়ে চলছে বিক্ষোভ প্রদর্শন

0
kolkata bengali news

জেলা ডেস্ক: টাকা ফেরত চাই। আর সেই দাবি নিয়ে গত কয়েকদিন ধরেই তৃণমূল কংগ্রেসের জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছে বাংলার আনাচেকানাচে। বুধবারও সেই বিক্ষোভ অব্যাহত রইল। লক্ষ্যণীয় বিষয় এইকয়দিন ধরে যে সব বিক্ষোভ হতে দেখা যাচ্ছিল তার কোথাও আদিবাসী সংগঠনের ভূমিকা চোখে পড়েনি। কিন্তু বুধবার মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুর শহরেই চোখে পড়ল কাটমানি কাণ্ডে আদিবাসী সংগঠনের বিক্ষোভ প্রদর্শন। বুধবার বহরমপুর থানার ইন্দ্রপ্রস্থ এলাকায় ধামসা মাদল নিয়ে এক পঞ্চায়েত সদস্যের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখালো আদিবাসী উপভোক্তারা। তারা কাটমানি ফেরতের দাবিতে এই বিক্ষোভ দেখায়।

জানা গিয়েছে, বহরমপুর ব্লকের হাতিনগর গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য স্যামুয়েল টুডু পেশায় শিক্ষক। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ যে, তিনি বিভিন্ন আবাস যোজনায় ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে দশ হাজার টাকা করে কাটমানি নিয়েছেন। কাটমানি না দিলে পরের কিস্তির টাকা পাওয়া যাবে না বলে হুমকি দিতেন তিনি। তার জেরেই অসহায় মানুষেরা ঘর পিছু দশ হাজার টাকা করে কাটমানি দিয়েছেন। বুধবার সকালে ধামসা মাদল নিয়ে তার বাড়ির সামনে হাজির হয় রাঙামাটি, হাতিনগর এলাকার আদিবাসী উপভোক্তারা। তাদের দাবি আদিবাসী সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি হয়েও স্যামুয়েল টুডু তাদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। অভিযুক্ত পঞ্চায়েত সদস্যের শাস্তির দাবি করেন তারা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছায় বহরমপুর থানার পুলিশ। তবে অভিযুক্ত শিক্ষক পঞ্চায়েত সদস্যের কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

এদিকে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঘাটাল পুরসভার বিরুদ্ধেও কাটমানির অভিযোগ এনে পোস্টার পড়তে দেখা গেল ওই মহকুমা শহরে। জানা গিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা প্রকল্পে বহু সাধারন মানুষ উপকৃত হয়েছেন। ঘাটাল পুরসভাতে প্রথম পর্যায়ে ৭৮৯ জন বাড়ি পেয়েছেন। কিন্তু তাদের বাড়ির জন্য ১৮, ৪০০টাকা বাকি রয়ে গেছে। তার জেরে তৃণমূলের কর্মীরা হয়তো এই টাকা পেয়েছেন বাকি সাধারণ মানুষ কেউ এই টাকা পায়নি, এই ধারনা ছড়িয়ে পড়েছে শহরে। এই না পাওয়া টাকার দাবিতে কিছুদিন আগে পুরসভায় ডেপুটেশন দেয় স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব। বুধবার তারা পোস্টার লাগান ঘাটাল শহরে। তাদের দাবি এই টাকা ঘাটাল পুরসভায় এসেছে আর তৃণমূলের নেতারা তা ভাগ করে নিয়েছে। কারন ঘাটাল পুরসভা তৃণমূলের দখলে রয়েছে। আর তাই পুরপ্রধান সহ সমস্ত কাউন্সিলর ও তৃণমূলের নেতা কর্মীরা এই টাকা কাটমানি হিসাবে নিয়ে নিয়েছে। বিজেপি এদিন জানিয়েছে অবিলম্বে ওই টাকা ফেরত না দেওয়া হলে তারা আগামি দিনে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন।

অন্যদিকে বীরভূম জেলার সদর শহর সিউড়ির অনতিদূরে কাটমানি ফেরতের দাবিতে তৃণমূল নেতার বাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ দেখানোর ঘটনা ঘটল বুধবার। জার জেরে সাময়িক উত্তেজনার সৃষ্টি হয় সিউড়ি থানা এলাকার গাংটে গ্রামে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, ওই এলাকার স্থানীয় তৃণমূল নেতা বিপদতারণ বাগদি ১০০ দিনের প্রকল্পের টাকা নয়ছয় করেছেন এবং প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার বাড়ি তৈরির জন্য কাটমানি নিয়েছে। সেই কাটমানির টাকা ফেরত দিতে হবে এবং ১০০ দিনের কাজ প্রকল্প সহ অন্যান্য প্রকল্পের টাকার হিসাব বুঝিয়ে দেবার দিতে হবে। এই দুই দাবিকে সামনে রেখে বুধবার সকালে থেকে তার বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখান এলাকাবাসীরা। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এরপরেই ওই গ্রামবাসীরা স্থানীয় কোমা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন উপপ্রধান কাঞ্চন বৈদের বাড়ি ঘিরেও বিক্ষোভ দেখান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here