তাণ্ডব চালাতে সন্ধ্যাতেই ‘হানা’ দিতে চলেছে ‘বুলবুল’, মোকাবিলায় তৎপর প্রশাসন

0
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক: ক্রমশ উত্তর-পশ্চিম দিকে এগোচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। ওড়িশার কাছাকাছি পৌঁছে উত্তর-পূর্ব দিকে ঘুরে যাবে। উপকূল বরাবর এলাকা দিয়ে এগিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ ও বাংলাদেশের খেপুপাডা়র মাঝখান দিয়ে স্থলভাগে প্রবেশ করার সম্ভাবনা ‘বুলবুল’-এর। তারপর এটি বাংলাদেশের দিকে চলে যাবে। স্থলভাগে ঢুকে পড়ার সময় ঝড়ের গতিবেগ ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার থেকে ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে। তারপর ধীরেধীরে শক্তি হারিয়ে দুর্বল হয়ে পড়তে পারে।

‘বুলবুল’ মোকাবিলায় কোমর বেঁধে নেমে পড়েছে প্রশাসন। ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কায় হাওড়া থেকে ফেরি পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। হাওড়া-বাবুঘাট, ফেয়ারলি প্লেস, বাগবাজার, আহিরিটোলা সব ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে আজ সকাল থেকে। গতকাল রাত থেকে শুরু হয়েছে বৃষ্টি। সঙ্গে রয়েছে ঝোড়ো হাওয়া। আজ সকাল থেকে বৃষ্টির পরিমাণ বেড়েছে। ঝড়ের প্রভাব বেড়েছে। রাস্তাঘাট প্রায় সুনসান। ‘বুলবুল’-এর কারণে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে ইন্ডিগোর মোট ২৩টি বিমান বাতিল করা হয়েছে। যে বিমানগুলি সকাল ১১ টার পর থেকে কলকাতা থেকে- রাঁচি, পাটনা, দিল্লি, চেন্নাই, মুম্বাই, দিল্লি, পুনে-সহ আরও বেশ কয়েকটি জায়গায় যাওয়ার কথা ছিল।

দিঘার সৈকতে থাকা পর্যটকদের সরিয়ে দিল পুলিশ-প্রশাসন ও জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর। ওল্ড দিঘা ও নিউ দিঘায় সমুদ্র সৈকতে উৎসুক পর্যটকদের ভিড় জমেছিল ঘূর্ণিঝড় দেখার জন্য। কিন্ত নিরাপত্তার কারণে তাদের সরিয়ে দিল প্রশাসন। বুলবুল ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সুনসান দিঘা। শনিবার সকাল থেকেই শুরু হয়েছে ঝোড়ো হাওয়া। তার সঙ্গে বৃষ্টি। দোকানপাট বন্ধ। রাস্তায় যানবাহন চলাচল প্রায় নেই বললেই চলে। ঝড়ে ভেঙে গিয়েছে কয়েকটি দোকান। প্রশাসনের তরফ থেকে নজরদারি চালানো হচ্ছে। দিঘা থেকে পর্যটকরা বাড়ির দিকে রওনা দিলেও বেশ কিছু উৎসাহী পর্যটক দিঘাতে এসেছে বুলবুল ঘূর্ণিঝড় দেখার জন্য।

বুলবুলের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে ও গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে ইতিমধ্যেই জারি হয়েছে সতর্কতা। পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ঘূর্ণিঝড়ের বেশি প্রভাব পড়তে পারে বলে জানানো হয়েছে। সেই কারণে উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে অতিরিক্ত সতর্কতা জারি হয়েছে। মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। যাঁরা ইতিমধ্যেই সমুদ্রে রয়েছেন, তাঁদের ফিরে আসার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। দিঘা, মন্দারমণি, বকখালি, তাজপুর-সহ উপকূলবর্তী সমস্থ পর্যটনকেন্দ্রগুলিতে নজর রাখা হচ্ছে। পর্যটকদেরও সমুদ্রের আশপাশে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। দিঘায় শুরু হয়ে গিয়েছে জলোচ্ছ্বাস। ফুঁসছে সমুদ্র। আশঙ্কা করা হচ্ছে, প্রবল জলোচ্ছ্বাসের ফলে বাঁধ টপকে জল আসতে পারে।

কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগনা, হাওড়া ও হুগলি-সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে জারি হয়েছে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির সতর্কতা। ‘বুলবুল’-এর আশঙ্কায় আগামিকাল শনিবার দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, সুন্দরবন, পূর্ব-পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম ও কলকাতা-সহ বেশ কয়েকটি জেলার প্রাথমিক স্কুলগুলিতে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। নবান্নে খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। কন্ট্রোল রুমের নম্বর- ২২১৪৩৫২৬ ও ২২১৪৩৫৮৬। এছাড়াও চালু হয়েছে টোল ফ্রি নম্বর ১০৭০। যে কোনও পরিস্থিতির মোকাবিলায় বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরকে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here