ডেস্ক: প্রতিদিনই দেশের কোনও না কোনও জায়গায় পথদুর্ঘটনা ঘটে। সেই খবরও আমরা পাই। রোজের এই পথদুর্ঘটনার কারণে হাজার হাজার মানুষের প্রাণ যায়। সমীক্ষা করে দেখা গেছে, এই পথদুর্ঘটনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় কারণ হয়ে উঠে এসেছে রাস্তার গর্ত। মানুষ সচেতনভাবে যাতায়াত করলেও রাস্তার রক্ষণাবেক্ষণ ঠিক না হওয়ায় যে ফাটল বা গর্তের সৃষ্টি হয়, তারজন্যই প্রাণহানি ঘটে বহু মানুষের। এই ঘটনা নিয়েই এবার উদ্বেগ প্রকাশ করল দেশের শীর্ষ আদালত।

সীমান্তে যত না জওয়ান শহীদ হন তার থেকেও বেশি মানুষের মৃত্যু ঘটে পথদুর্ঘটনায়। রাস্তায় গর্ত থাকাই এই পথ দুর্ঘটনার সবচেয়ে বড় কারণ। এইভাবে কোনও ব্যক্তির মৃত্যু কোনওভাবই মেনে নেওয়া যায় না। এমন জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করল সুপ্রিম কোর্ট। বিচারপতি মদন বি লকুরের ডিভিশন বেঞ্চ পথদুর্ঘটনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, শেষ পাঁচ বছরে প্রায় ১৫,০০০ মানুষ রাস্তায় গর্ত থাকার কারণে পথদুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। ওই সময়ে সীমান্তে শহিদ হওয়া জওয়ানের সংখ্যাও হয়তো এত নয়। মদন বি লকুরের ডিভিশন বেঞ্চ খতিয়ান দিয়েছে, ২০১৩ থেকে ২০১৭ সালে যেভাবে পথদুর্ঘটনার ঘটনা ঘটেছে তাতে পরিস্কার দেশের একাধিক রাস্তার সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় নি। এই প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, রাস্তার রক্ষণাবেক্ষণ না করার জন্য মানুষের প্রাণ যাওয়াটা সত্যিই দুঃখজনক। এই ঘটনা এটাই মনে করায়, যে কাজ করা উচিৎ সেই কাজ সঠিকভাবে পালন করা হচ্ছে না। রাস্তায় গর্তের কারণে দুর্ঘটনায় যাদের মৃত্যু ঘটেছে তাদের পরিবারের ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিৎ বলে মনে করছে সুপ্রিম কোর্ট।

শুধুমাত্র পথদুর্ঘটনার কারণে এত মানুষের মৃত্যু নিয়ে যথেষ্ট উদ্বেগ দেখিয়েছে শীর্ষ আদালত। পুরো বিষয় নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে জবাব চাওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি কাজের খতিয়ান দিয়ে রোড সুরক্ষা কমিটিকে দু’সপ্তাহের মধ্যে রিপোর্ট পেশেরও নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here