national news

Highlights

  • সংসদ ভবনের দিকে যাত্রা করেছিলেন জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা
  • মাঝপথে সিএএ-বিরোধী সেই মিছিল ব্যারিকেড দিয়ে আটকে দেয় পুলিশ
  • ব্যারিকেড টপকে এগোতে গেলে কয়েকজন পড়ুয়াকে আটক করে পুলিশ

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দিল্লির সংসদ ভবনের দিকে এগোচ্ছিল জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়াদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের সিএএ বিরোধী মিছিল। কিন্তু মাঝপথেই তাদের আটকে দেয় দিল্লি পুলিশ। এরপরই পড়ুয়া-পুলিশের সংঘর্ষে বাধে ধুন্ধুমার। জানা গিয়েছে, কয়েকজন পড়ুয়াকে আটক করেছে পুলিশ।

কলেজ থেকে মাত্র দু কিলোমিটার দূরে ‘হাম কাগজ নাহি দিখায়েঙ্গে’ এই স্লোগান তুলে সংসদ ভবনের দিকে যাত্রা করেছিলেন জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। তবে মাঝপথে সিএএ-বিরোধী সেই মিছিল ব্যারিকেড দিয়ে আটকে দেয় পুলিশ। যার জেরে ক্ষোভে ফেটে পড়েন পড়ুয়ারা। ব্যারিকেড টপকে যাওয়ার চেষ্টা করে প্রতিবাদী পড়ুয়ারা। যা কেন্দ্র করে শুরু হয় পুলিশ -পড়ুয়াদের মধ্যে খন্ডযুদ্ধ। বেশ কয়েকজন পড়ুয়াকে পুলিশ আটক করেছে বলেও খবর পাওয়া গিয়েছে।

 জামিয়া নগর থানার এক পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, এই মিছিল করার অনুমতি দেওয়া হয়নি পড়ুয়াদের। তা সত্ত্বেও তা অমান্য করে মিছিল করে তারা। এমনকি পড়ুয়ারা জানান, এটা আমাদের অধিকার যে আমরা মিছিল করব, তাই কেউ আটকাতে পারবে না আমাদের। জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার প্রধান প্রকটরের ওয়াসিম আহমেদের দাবি, তিনিও পড়ুয়াদের ও পুলিশকে শান্তভাবে এই পরিস্থিতি সামলানোর জন্য অনুরোধ করেছিলেন। পড়ুয়াদেরকে মিছিল বন্ধ করে ফেরার জন্য আবেদন করেছিলেন তিনি।

পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে যে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে জলকামান ছোঁড়ে পুলিশ। ফাটানো হয় কাঁদানে গ্যাসের সেলও। বিক্ষোভকারী পড়ুয়ারা এর মাঝেই স্লোগান দিতে থাকে ‘আইন কে দম পর মার্চ করেঙ্গে’। প্রসঙ্গত, সিএএর বিরোধ করায় ৩০ জানুয়ারি এই জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকে পড়ুয়াদের বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠেছিল দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here