মহানগর ওয়েবডেস্ক: নভেল করোনা ভাইরাস নিয়ে চলা লকডাউনের মধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যের চা বাগান গুলি খুলে স্বাভাবিক কাজকর্ম করার অনুমতি দিয়েছে। মোদী সরকার অনুমতি দিলেও বাগিচা শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার স্বার্থে রাজ্য সরকার এখনই বাগান চালু না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজ নবান্নে সাংবাদিকদের বলেন, বাগান খোলার ব্যাপারে কেন্দ্র সরকার সবুজ সংকেত দিলেও কালিম্পং এ একই পরিবারের ১১ জন করনায় আক্রান্ত হওয়ার জেরে এবং উত্তরবঙ্গের জেলাগুলি আসাম ,নেপাল, ভুটান ও বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী হওয়ায় রোগ সংক্রমণের বেশ কিছুটা ঝুঁকি থাকছে। তাই চা বাগান গুলি এখনই না খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে রাজ্যের তরফে।

এদিন সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানান, বিগত দুদিনে রাজ্যে আরো ১২ জন নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ইতিমধ্যেই মৃত ও সুস্থ হয়ে যাওয়া ব্যক্তিদের বাদ দিলে আজ দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ৬১ জন আক্রান্ত বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি জানিয়েছেন। এই সময় রাজ্যে নতুন করে কোন কোরোনা আক্রান্তের মৃত্যু হয়নি বলেও তিনি জানান। নবান্নে আজ এক সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ৬১ জন আক্রান্তের মধ্যে ৫৫ জন ৭ টি পরিবারের সদস্য।এখনো পর্যন্ত রাজ্যে আক্রান্তদের মধ্যে ৯৯ শতাংশের বিদেশ যোগ রয়েছে বলে মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন।একই সঙ্গে রাজ্যে করোনায় আক্রান্তদের সুস্থতার হার নিয়ে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, বেলেঘাটা আইডি হাসপাতাল থেকে ইতিমধ্যেই ১৩ জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে চিকিৎসাধীন আরো ১৭ জনের মধ্যে ১২ জন সুস্থতার পথে।

কালিম্পিঙএ একই পরিবারের আক্রান্ত দশ জনের মধ্যে ৪ জনের নমুনা পরীক্ষা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।একজন রোগীকে বাদ দিলে রাজ্যে বাকি সব করোনা আক্রান্তের অবস্থা সন্তোষজনক বলে তিনি জানিয়েছেন।মানুষকে আশঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, সতর্কতা অবলম্বন করলে আগামী দিনে এই মহামারীর হাত থেকে রেহাই মিলতে পারে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here