জেলাডেস্ক: ভাঙড়ের দোর্দণ্ডপ্রতাপ তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলামকে ছাড়াই ‘দিদিকে বলো’ ও ‘জনসংযোগ যাত্রা’-র কর্মযজ্ঞ শুরু হল দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। ভাঙড়ের বিধায়ক তথা মন্ত্রী রেজ্জাক মোল্লার নেতৃত্বেই এদিন জনসংযোগ যাত্রা করল জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। ভাঙড়ের শোনপুর বাজার দিয়ে জনসংযোগ যাত্রা শুরু করেন বিধায়ক রেজ্জাক মোল্লা। রাস্তায় হেঁটে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি তাদের হাতে ‘দিদিকে বলো’ লেখা লিফলেটও তুলে দেন মন্ত্রী। এদিনের জনসংযোগ অভিযানে রেজ্জাক মোল্লার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন ভাঙড়ের তৃণমূল কংগ্রেস নেতা অহিদুল ইসলাম, নান্নু হোসেন, কাইজার আহমেদ, মোস্তাক আহিমেদ, আব্দুর রহিম মোল্লা সহ এলাকার শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। তবে দলীয় এই কর্মসূচিতে আরাবুল ইসলামকে দেখা যায়নি। এব্যাপারে রেজ্জাক মোল্লাকে প্রশ্ন করা হলে তাঁর অকপট জবাব, ‘নির্বাচিত কমিটির মধ্যে আরাবুল ইসলামের নাম নেই।’

শুধু দক্ষিণ ২৪ পরগনা নয়, রাজ্যের অন্যান্য জেলাতেও ‘দিদিকে বলো’ কর্মকাণ্ডের প্রচারের মধ্য দিয়ে তৃণমূল নেতৃত্বের জনসংযোগ অভিযান শুরু হয়ে গিয়েছে। এদিন মধ্যমগ্রামে ‘দিদিকে বলো’ প্রচারের কাজ শুরু করলেন স্থানীয় বিধায়ক রথিন ঘোষ। জেলা নেতৃবর্গকে সঙ্গে নিয়ে তিনি মধ্যমগ্রাম পুরসভা-সংলগ্ন মধ্যমগ্রাম-সোদপুর রোডে পথচলতি সাধারণ মানুষ, দোকানদার, ফল বিক্রেতা সহ সমাজের প্রান্তিক মানুষদের হাতে ‘দিদিকে বলো’ নামাঙ্কিত লিফলেট তুলে দেন। আগামী শনিবার থেকে মধ্যমগ্রাম বিধানসভার পশ্চিম খিলকাপুর গ্রামপঞ্চায়েতের অধীনে ময়নাগদি গ্রাম থেকে শুরু হবে ‘দিদিকে বলো’-র জনসচেতনতামূলক কাজ শুরু হবে বলেও বিধায়ক জানিয়েছেন।

অন্যদিকে, পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পাঁশকুড়ায় সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচির সূচনা করলেন স্থানীয় বিধায়ক ফিরোজা বিবি। পাঁশকুড়ার পুরপ্রধান নন্দকুমার মিশ্র, তমলুকের পুরপ্রধান রবীন্দ্রনাথ সেন সহ একাধিক কাউন্সিলার এবং স্থানীয় নেতৃনবৃন্দের সঙ্গে রাস্তায় হেঁটে সাধারণ মানুষের মধ্যে ‘দিদিকে বলো’ নামাঙ্কিত লিফলেট বিলিও করেন পাঁশকুড়ার বিধায়ক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here