kolkata bengali news

Highlights

  • আধার কার্ড, ভোটার কার্ড দিয়ে নাগরিকত্ব প্রমাণ হবে না, দাবি দিলীপের
  • ‘আমাদের বাপ-মায়ের ঠিক আছে। যাদের নেই চিন্তা তাদের। আমাদের কোনও চিন্তা নেই’
  • ফের বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন দিলীপ ঘোষ

মহানগর ওয়েবডেস্ক: এনআরসি লাগু করার বিষয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ একাধিকবার বলেছেন, দেশজুড়ে এনআরসি হবে। সিএএ লাগু হওয়ার পরেই এনআরসি হবে এবং ভোটার কার্ড, পাসপোর্ট এসব দিয়ে নাগরিকত্বের প্রমাণ দেওয়া যাবে না। এককথায় এগুলো নাগরিকত্ব প্রমাণের তথ্য নয়। পরে অবশ্য এনআরসি আর নথি সংক্রান্ত বিষয় থেকে নিজের বক্তব্য থেকে সরে এসেছেন তিনি। কিন্তু নিজের ভঙ্গি একরকমই রেখেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দ্বিতীয়বার সভাপতি হওয়ার আগে অগুন্তিবার বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচিত হয়েছেন তিনি। এবার পুনরায় সভাপতি হয়ে ফের বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন দিলীপ ঘোষ। বিষয় সেই এনআরসি।

‘আধার কার্ড, ভোটার কার্ড দিয়ে নাগরিকত্ব প্রমাণ হবে না। এগুলো নাগরিকত্ব প্রমাণের নথি নয়। প্রধানমন্ত্রী সবাইকে তিন-চার মাস সময় দেবেন, তার মধ্যে সকলকে সবকিছু প্রমাণ করতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথা যদি শুনে চলেন তাহলে পরে সমস্যায় পড়তে পারেন।’ হাওড়ায় বিজেপির অভিনন্দন যাত্রা থেকে এমনই ভাষায় হুঁশিয়ারি দিলেন দিলীপ ঘোষ। তবে বিস্ফোরক মন্তব্য এখানেই থেমে থাকেননি দিলীপ। তিনি দাবি করেন, ‘আমাদের বাপ-মায়ের ঠিক আছে। যাদের নেই চিন্তা তাদের। আমাদের কোনও চিন্তা নেই।’ উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রী এনআরসি-সিএএ বিরোধিতা করে একাধিক বার প্রশ্ন তুলেছেন যে, তাঁর বাবা-মায়ের বার্থ সার্টিফিকেট নেই। এমন নথি নেই হাজারো মানুষ রয়েছেন, তাদের কী হবে। সেই প্রসঙ্গেই দিলীপের এই মন্তব্য।

রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, একদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এনআরসি নিয়ে যে দাবি করছেন তার সম্পূর্ণ উল্টো সুর মেলাচ্ছেন দিলীপ। এতে বিজেপির দ্বিচারিতা স্পষ্ট হচ্ছে। বিরোধীরা মন্তব্য করছে যে, এতে বিজেপির আসল চেহারা বেরিয়ে আসছে। সিএএ প্রতিবাদ, এনআরসি নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভের আবহেই মোদী-শাহ এনআরসি প্রসঙ্গে সম্পূর্ণ উল্টো কথা বলেছেন। তাঁদের কথায়, এনআরসি নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও আলোচনাই হয়নি। বিজেপি নেতৃত্বও একই বক্তব্য পেশ করেছেন। কিন্তু বাংলায় আবহাওয়া গরম হচ্ছে দিলীপ ঘোষের মন্তব্যে। তিনি অনড়, বাংলাদেশ থেকে যারা এসেছেন তাদের নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে হবে, তারা যে ধর্মেরই হোক না কেন। তবে, কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্ব এবং বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্ব কেন আলাদা কথা বলছে তা বুঝে উঠতে পারছে না কেউই।

সিএএ, এনআরসি নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ এখনও বর্তমান। উত্তর-পূর্ব থেকে শুরু হওয়া এই আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে বাংলা, ওড়িশা, কর্ণাটক সহ প্রায় প্রতিটা রাজ্যে। বিক্ষোভের জেরে নিজেদের বক্তব্য থেকে সরে এসেছে বিজেপি। আপাতত তারা এনপিআর করার দিকে জোর দিচ্ছে। যদিও এনপিআর যে এনআরসির প্রথম ধাপ সে নিয়েও জল্পনা ছড়ানোয় বিতর্ক এখন তুঙ্গে। তবে আজকের এনপিআর নিয়ে বৈঠকে বাংলা ছাড়া সব রাজ্যেই উপস্থিত ছিল। এই আবহে ফের একবার এনআরসি হওয়া নিয়ে মন্তব্য করে বিতর্ক আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here