kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: দলের মধ্যে দ্বন্দ্বের যে চোরাস্রোত আছে, তা দল জিতলে হয়তো ততটা প্রকট হতো না। কিন্তু এখন আর সেই দ্বন্দ্ব চাপা নেই। একেবারে প্রকাশ্যে এসে পড়েছে। বিজেপির শোচনীয় পরাজয়ের পর দলের মধ্যে একে অপরকে লক্ষ্য করে কাদা ছোড়াছুড়ি শুরু হয়ে গিয়েছে। চলছে ঘাড়ে দোষ চাপানোর পালা। আজ দলের ‘হেরো’ তারকা প্রার্থীদের সম্পর্কে একটি টুইট করে বিতর্ক উস্কে দেন বিজেপি’র প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি তথাগত রায়। তিনি লেখেন, ‘পায়েল, শ্রাবন্তী, পার্নো ইত্যাদি নগরীর নটীরা নির্বাচনের টাকা নিয়ে কেলি করে বেড়িয়েছেন। আর মদন মিত্রের সঙ্গে নৌকা বিলাসে গিয়ে সেলফি তুলেছেন (এবং হেরে ভূত হয়েছেন) তাদেরকে টিকিট দিয়েছিল কে? কেনই-বা দিয়েছিল? দিলীপ, কৈলাস, প্রকাশ অরবিন্দ প্রভুরা একটু আলোকপাত করবেন কি?

​তথাগত রায়ের এই বিস্ফোরক বক্তব্যের পর ব্যাপক চর্চা শুরু হয় রাজ্য বিজেপির অন্দরে। তার এই বক্তব্য সামনে আসার পর বর্তমান রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, ‘আমি পালানোর রাজনীতি করি না। কেউ কল্পনার জগতে থাকতেই পারেন। কিন্তু আমরা বাস্তবে লড়াই করেছি। এটা একটা অসম যুদ্ধ ছিল। আজ পর্যন্ত আমরা রেকর্ড সিট জিতেছি। যেটা কেউ কল্পনা করেননি। আমরা এখনও লড়াই করছি। যে কর্মীরা হাতে প্রাণ নিয়ে লড়াই করেছেন, আমরা তাদের সঙ্গে আছি। আগামী দিনেও থাকব। আগের থেকে অনেক ভাল ফল হয়েছে। আজ নয়তো কাল পরিবর্তন হবেই।‘ দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্য যে তথাগত রায়কে উদ্দেশ্য করেই ছিল তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে তথাগতর নাম উল্লেখ করে দিলীপ ঘোষ কিছু বলেননি।

​অন্যদিকে, তথাগত রায়ের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন আর এক প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহা। তিনি বলেছেন, ‘এখন কর্মীদের পাশে থাকার সময়। কর্মীদের উদ্ধার করা দরকার। এটাই এখন প্রথম কাজ। পরে হারের বিভিন্ন কারণের ময়না তদন্ত করা যাবে।‘

​রাজ্য বিজেপির অভ্যন্তরে এই যে কাদা ছোড়াছুড়ি শুরু হয়েছে, আগামী দিনে তা আরও বাড়বে বলে মনে হয়। কারণ বিজেপি রাজ্য নেতৃত্ব কয়েকটি শিবিরে বিভক্ত। এক পক্ষ অপর পক্ষের দিকে আঙুল তোলার জন্য সবসময় মুখিয়ে থাকে। দলের এই শোচনীয় পরাজয় এবার সেই আগল খুলে দিতে পারে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here