kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ত্রাণ বিতরণের ক্ষেত্রে স্বজনপোষণের অভিযোগ আগেই উঠেছিল শাসকদলের বিরুদ্ধে। এই অভিযোগের সত্যতা কার্যত কিছুটা হলেও স্বীকার করে নিয়েছেন খোদ দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার আমাফানে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ত্রিপল কেনার ক্ষেত্রেও বিশাল অঙ্কের টাকার গড়মিলের অভিযোগ উঠল শাসকদলের বিরুদ্ধে। আর এই ঘটনার নেপথ্যে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীকেই দায়ী করলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বললেন, ‘রাজ্যে দুর্নীতি হচ্ছে মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণাতেই।’

ত্রাণ বিলিতে দুর্নীতি হচ্ছে, এই অভিযোগের সরব হয়ে প্রথম থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় দেখা গিয়েছে বিক্ষোভ। তবে শুধুমাত্র বিরোধী দলই নয়, কিছু কিছু জায়গায় বিক্ষোভে শামিল হতে দেখা গিয়েছে খোদ শাসক দলের কর্মীদের। দেখা গিয়েছে, প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের বঞ্চিত করে কোথাও কোথাও নিজেদের ঘর ভরিয়েছে শাসক দলের একাংশ। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তাঁদেরকে সেই টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে দল। বহিষ্কারও করা হয়েছে কিছুজনকে। যদিও এদের বিরুদ্ধে এখনও পর্যন্ত আইনি ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি সরকার বা দলের তরফে। আর এইখানেই প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি।

এদিন এই পুরো ঘটনার নেপথ্যে মুখ্যমন্ত্রীকেই দায়ী করেছেন দিলীপ ঘোষ। তাঁর প্রশ্ন, ‘ত্রাণ বিলিতে যারা দুর্নীতি করেছেন তাদের বিরুদ্ধে কেন আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হলো না! কেন শুধুমাত্র শোকজ করা হল!’ দিলীপ ঘোষের কথায়, ‘মানুষ ভুলে গেলে আবার তাদের দলে ফেরানো হবে। শোকজের নামে আইওয়াশ করা হচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সব জানেন। সব জেনে চুপ করে আছেন। বর্তমানে রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী অনুপ্রেরণাতেই সবকিছু হয়। তাই মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন ছোট ভুল।’

এরপরই এদিন সরকারের বিরুদ্ধে বিপুল অঙ্কের টাকার গড়মিল অভিযোগ আনেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি। দিলীপ ঘোষের দাবি, ‘নির্দিষ্ট দামের থেকে বেশি টাকা দিয়ে ত্রিপল কেনা হয়েছে। ১৮ কোটি টাকা গড়মিল হয়েছে। দুর্নীতি হয়েছে ত্রিপল কেনার ক্ষেত্রেও। এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে এফআইআর করতে হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here