kolkata bengali news

ডেস্ক: চলতি মাসের ১০ তারিখ ঘোষণা হয়েছিল সপ্তদশ নির্বাচনের দিনক্ষণ। এরপর ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও বিজেপির প্রার্থী তালিকার এখনও দেখা নেই। প্রতিদিনই মনে করা হচ্ছে, আজই প্রকাশ পাবে বিজেপির প্রার্থী তালিকা। কিন্তু বেলা গড়িয়ে রাত হচ্ছে, আর নিরাশ হচ্ছেন গেরুয়া শিবিরের কর্মীরা। তবে এত কিছুর মধ্যেও আত্মবিশ্বাসে ভাটা পড়েনি বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের। মনের জোর নিয়ে এখনও তিনি বলে চলেছেন, ‘ওস্তাদের মার শেষ রাতে।’

লোকসভা ভোটে প্রার্থী হওয়ার জন্য আবেদনকারীদের তালিকা নিয়ে দিনদুয়েক আগেই দিল্লি উড়ে গিয়েছেন দিলীপ। কিন্তু কয়েক দফা বৈঠকের পরও কোনও নামেই দলের তরফে সিলমোহর দেওয়া হয়নি। এর কারণ হিসেবে মনে করা হচ্ছে, রাজ্যের সঙ্গে কেন্দ্রীয় নেতাদের মত মিলছে না। বিরোধ বেঁধেছে বিশেষ করে দলবদলু নেতাদের নিয়ে। অর্জুন সিং ও শঙ্কুদেব পণ্ডাদের মতো প্রাক্তন নেতাদের টিকিট দেওয়া নিয়ে কার্যত দ্বিধাবিভক্ত পদ্ম শিবির। যার জেরেই এই বিলম্ব হচ্ছে বলে মনে করা যায়। তবে দিলীপবাবু এসব নিয়ে বেশি ভাবছেন না। কারণ তাঁর মতে, রাজ্যে ২৩টি আসন বিজেপি পাচ্ছেই। এদিন রাজধানীতে দাঁড়িয়ে তৃণমূল-সিপিএমকে একহাত নিয়ে দিলীপ বলেন, ‘যেসব ছাত্ররা পাড়া জাগিয়ে আগে থেকে পড়ছে, তাদের রেজাল্ট কী হবে সবাই জানে। আমরা সবাই তৈরি, নাম ঘোষণা হলেই নেমে পড়ব। ওস্তাদের মার শেষ রাতেই হয়।’

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় বাহিনীর ‘অতিসক্রিয়তা’ নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে দ্বারস্থ হয়েছিল তৃণমূল। শাসকদলের অভিযোগ খতিয়ে দেখে কমিশনও কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সাবধান করেছে বলে জানা গিয়েছে। এই নিয়েও মুখ খোলেন দিলীপবাবু। তিনি বলেন, ভোট এলেই বাড়ি বাড়ি হুমকি দেওয়া, ভয় দেখানো। এটাই করে আসছিল তৃণমূল কংগ্রেস। কেন্দ্রীয় বাহিনী চলে আসায় মানুষ আসলে খুশি। কোথায় গুন্ডা আছে, সবটাই কেন্দ্রীয় বাহিনী আছে। তাই তারা সাবধান করে দিচ্ছে। কিন্তু তৃণমূল এতে ঘাবড়ে গিয়েছে। ঘাবড়াবার কী আছে!’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here