kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ভাইফোঁটার উপহার দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলের সঙ্গে দীর্ঘ দিনের অভিমানকে দূরে ঠেলে ফের তৃণমূলের দোরে পা রেখেছেন শোভন। তাঁর বিজেপি যোগের অপরাধ যে হাসতে হাসতে ক্ষমা করে দিয়েছেন ‘দিদি’ সে প্রমাণ মিলেছে এদিন। গেরুয়া সংযোগের জন্য তুলে নেওয়া নিরাপত্তা এদিন ফের ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে প্রাক্তন মেয়রকে। এদিকে এই দল বদলের গেরোয় বিপাকে পড়ে যাওয়া বিজেপি মোক্ষম খোঁচাটা দিল তৃণমূল সরকারকে।

শুক্রবার রাজ্য বিজেপির সদর দফতরে বিজেপির সাংবাদিক বৈঠকে শোভনের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে কার্যত অপ্রস্তুত দেখাল দিলীপ ঘোষকে। রাজ্য সরকারের তরফে শোভনের নিরাপত্তা ফিরিয়ে দেওয়া প্রসঙ্গে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে দিলীপ বাবু বলেন, ‘শোভনের নিরাপত্তা কেন তুলে নেওয়া হল, কেন আবার দিয়ে দেওয়া হল সেটা ওনারাই ভালো বলতে পারবেন। তবে কাশ্মীরের ভয়েই কি নিরাপত্তা দেওয়া হল?’ সে প্রশ্নও তোলেন তিনি। প্রসঙ্গত, কাশ্মীরে ৫ বাঙালি খুনে সম্প্রতি রাজনৈতিক তরজা বৃদ্ধি পেয়েছে তৃণমূল ও বিজেপির। সেই প্রস্নত তুলেই এদিন খোঁচাটা দেন দিলীপ। পাশাপাশি, বিজেপির তরফে কেন শোভনকে নিরাপত্তা দেওয়া হয়নি সে প্রশ্ন উঠতে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘বিজেপি নিরাপত্তা দেবে এমন কোনও কথা নেই। অনেকে চেয়েছেন। আমরা প্রয়োজন মনে হলে কেন্দ্রকে নিরাপত্তার আবেদন করি। এরপর তারা সিদ্ধান্ত নেয় দেবে কিনা। এখানে আমাদের কিছু বলার থাকে না।’

তবে সাংবাদিক বৈঠকে প্রশ্ন উত্তর পর্ব শোভন নিয়ে বেশ একটি গা ছাড়া ভাবি দেখালেন দিলীপ ঘোষ। শোভন যে এখনও তাঁদের নেতা এটা স্বীকার করতেও কেমন যেন অস্বস্তি দিলীপ ঘোষদের। তাঁর কথায়, ‘উনি বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর, আমরা যথেষ্ট করেছি। এখানে সংবর্ধনা দিয়েছি ওনাকে। কিন্তু উনি সেই একদিনই এসেছিলেন, তারপর থেকে আর ওনার দেখা পাওয়া যায়নি। কোনও কর্মসূচিতে যোগ দেননি। আমি ফোন করেছি তাও আসেননি।’ এরপরই শোভনের তৃণমূল যোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘উনি কি করবেন সেটা উনিই ভালো বলতে পারবেন। তবে উনি আমাদের সঙ্গে আসতে চেয়েছিলেন, আমরা ওনাকে শুধু স্বীকার করেছি মাত্র। আর কিছু না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here