ডেস্ক: পঞ্চায়েত ভোটের বাদ্যি বেজে যাওয়ার পর থেকেই শাসকদল তৃণমূলের বিরুদ্ধে রাজ্য জুড়ে ব্যাপক হিংসার অভিযোগ তুলেছে বিজেপি সহ বিরোধীরা। মনোনয়ন জমা দিতে দিছে না বিরোধীরা এই অভিযোগে সুপ্রিম কোর্টেরও দ্বারস্থ হয়েছে রাজ্য বিজেপি। মনোনয়ন জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে রায়গঞ্জ, কোচবিহার, বীরভূম, উত্তর ২৪ পরগণা, মুর্শিদাবাদে তৃণমূলের হামলার শিকার হয়েছেন বিরোধীরা এমনই অভিযোগ বিজেপির। মঙ্গলকোট, বাঁকুড়ার মতো কিছু জায়গায় তৃণমূলের হামলার পাল্টা হামলার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধের। মারের পাল্টা মার প্রসঙ্গে এদিন রাজ্য পুলিশ সহ শাসক দল তৃণমূলকে একহাত নিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তার অভিযোগ, ‘বিরোধী পার্টি অফিসে বোমা, বন্দুক রেখে বিরোধীদের গ্রেপ্তার করছে পুলিশ। আর সেই কারনেই মার খাছে পুলিশ।’

সাংবাদিকদের সামনে এদিন দিলীপবাবু বলেন, ‘পালে পালে মন্ত্রীরা রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। বিজেপির গুঁতো কি এখন টের পেয়েছেন ওনারা। ওনারা ভাবছেন ওনারা মারবেন আমরা দৌড়ব? এখন বিষয়টি অন্য হয়ে গিয়েছে ওদের দৌড়তে হচ্ছে।’ রাজ্যের পুলিশকে তৃণমূলের ক্যাডার উল্লেখ করে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘রাজ্যের পুলিশ তৃণমূলের ক্যাডারের রোল প্লে করছে। বিরোধীদের পার্টি অফিস সার্চ করছে। নিজেরা সঙ্গে করে বোমা, বন্দুক নিয়ে গিয়ে বিরোধীদের পার্টি অফিসে রেখে আসছে, আর গ্রেপ্তার করছে। সেই কারনেই গতকাল পেটন খেয়েছে পুলিশ। আগামী কয়েকদিনও পুলিশের কপালে দুঃখ আছে। ওঁরা আমাদের মারবে আর আমরাতো ওদের রসগোল্লা খাওয়াতে পারি না।’

উল্লেখ্য, পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা হওয়ার পর মনোনয়ন জমাকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে গোটা রাজ্য। বিজেপি তথা বিরোধীদের মারধোর থেকে শুরু করে এলাকায় আতঙ্ক ছড়ানোর অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। গতকাল সঙ্ঘর্ষের জেরে বাঁকুড়ায় আহত এক বিজেপি প্রার্থীর মৃত্যু হয়েছে৷ সরকারের বিরুদ্ধে হিংসা ছড়ানোর অভিযোগ তুলে সুপ্রিমকোর্টেরও দ্বারস্থ হয়েছে বিজেপি। তবে গতকালই বিরোধীদের সেই সমস্ত অভিযোগ দিয়েছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তার কথায়, কোনও হিংসা হয়নি তা যদি হল তাহলে এত মনোনয়ন দিতে পারত না বিজেপি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here