kolkata bengali news, District News.

নিজস্ব প্রতিবেদক, বর্ধমান: দীর্ঘদিন ধরে জেলার প্রশাসনিক স্তর থেকে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মন্ত্রীর কাছেও দরবার করে কোনও সুফল না হওয়ায় এবার বর্ধমানের সংস্কৃতি চর্চার ঐতিহ্যবাহী পীঠস্থান রবীন্দ্র ভবনকে বাঁচাতে সরকারের কাছে তা অধিগ্রহণের আবেদন জানানো হল খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের কাছে। ১৯৬৭ সালে প্রতিষ্ঠিত এবং রবীন্দ্রচর্চার জন্য তৈরী হওয়া এই রবীন্দ্রভবনে রয়েছে বহু মূল্যবান বইয়ের লাইব্রেরী ও সংগ্রহশালা। দু কাঠা জমির ওপর তৈরি এই ভবনের পাশাপাশি সম্প্রতি বর্তমান সম্পাদক আশীষ বিশ্বাসের উদ্যোগে আয় বাড়াতে তৈরি হয়েছে একটি আলাদা ভবনও। গত সোমবার পূর্ব বর্ধমান জেলায় প্রশাসনিক বৈঠক করতে আসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। বর্ধমানের সংস্কৃতি লোকমঞ্চে তিনি প্রশাসনিক বৈঠক করেন। এই বৈঠকেই পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী বর্ধমান রবীন্দ্র ভবনকে অধিগ্রহণের এই আবেদন মুখ্যমন্ত্রীর হাতে সঁপে দেন। যদিও মুখ্যমন্ত্রী এব্যাপারে এখনই কিছু না জানালেও রবীন্দ্র ভবনের বর্তমান পরিচালন কমিটি আশান্বিত হয়েছেন রবীন্দ্রভবনকে বাঁচাতে মুখ্যমন্ত্রী নিশ্চয়ই কোনও না কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

রবীন্দ্রভবনের পরিচালন কমিটির সম্পাদক আশীষ বিশ্বাস জানিয়েছেন, রবীন্দ্রভবন পরিচালনার জন্য প্রতি মাসে প্রায় ১ লক্ষাধিক টাকা খরচ হয়। কিন্তু সে অর্থে রবীন্দ্রভবনের আয় নেই। ফলে রক্ষণাবেক্ষণের তীব্র সমস্যার মধ্যে পড়তে হচ্ছে তাদের। তবুও তারা চেষ্টা করছেন। বর্তমানে কেয়ারটেকার, ঝাড়ুদার, নৈশপ্রহরী সহ মোট ৪জন কর্মী রয়েছেন। কিন্তু নামমাত্র টাকায় তাদের মাসিক বেতন দিতে হয় -যা অমানবিকও। আশীষবাবু জানিয়েছেন, অনেক দিন ধরেই তারা সরকারের কাছে এব্যাপারে আবেদন জানিয়ে আসছেন। সরকারী অনুদানের জন্যও জানিয়েছেন। কিন্তু সে অর্থে তারা কিছু পাননি। সাম্প্রতিক কালে কেন্দ্রের টেগোর কালচারাল কমপ্লেক্স নামে একটি প্রকল্পে ১ কোটি ১১ লক্ষ টাকা পাওয়া যায়। ওই টাকার মধ্যে কিছু টাকা বরাদ্দ হওয়ায় তা দিয়ে বর্ধমান উন্নয়ন সংস্থা বর্ধমান রবীন্দ্রভবনের সংস্কারের কাজ করে। আশীষবাবু জানিয়েছেন, বর্ধমান রবীন্দ্রভবনের রুগ্নপ্রায় অবস্থার জন্য রাজ্যের তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রীর কাছেও তারা আবেদন জানিয়েছেন। কিন্তু এখনও কোনও উত্তর আসেনি।

এদিকে, গত সোমবার বর্ধমানে মুখ্যমন্ত্রী প্রশাসনিক সভা করতে আসায় এই অধিগ্রহণ সংক্রান্ত আবেদন তার হাতে দেওয়া হয়। এ ব্যাপারে জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানিয়েছেন, ‘রাজ্য সরকার রবীন্দ্রভবন অধিগ্রহণ করলে তা ভালই হবে। সাংস্কৃতিক চর্চা ভালভাবে করা যাবে। রবীন্দ্র ভবন পরিচালন কমিটির আবেদন মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি।’ অন্যদিকে, জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক কুশল চক্রবর্তী জানিয়েছেন, ২০১৭ সালে রাজ্য তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তর থেকে রাজ্যের ২৩টি জেলার সরকারি ও বেসরকারি রবীন্দ্রভবনগুলির স্ট্যাটাস জানতে চায়। সেই সময় বর্ধমান রবীন্দ্রভবনের অবস্থা জানিয়ে কি প্রয়োজন এবং অধিগ্রহণের প্রস্তাবও পাঠানো হয়। তবে এখনও কোনও উত্তর আসেনি। সম্প্রতি রবীন্দ্র ভবন সংস্কার এবং রবীন্দ্র ভবন পরিচালনার জন্য বরাদ্দ অর্থের জন্যও আবেদন পাঠানো হয়েছে।’ তিনি এটাও জানিয়েছেন, রবীন্দ্রভবনকে সংস্কার ও আধুনিকীকরণ করা হলে তা ভাল হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here