কালো ব্যাজ পরে প্রতিবাদ, গণইস্তফা, চিকিৎসক আন্দোলনে উত্তাল বীরভূম

0
368

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিউড়ি: এনআরএস-এ চিকিৎসক নিগ্রহের বিক্ষোভের আঁচ পড়ল বীরভূম জেলাতেও৷ শুক্রবার সকালে কালো ব্যাজ পরে প্রতিবাদ, এরপরেই সিউড়ি সদর হাসপাতালে ইস্তফাপত্রে স্বাক্ষর করলেন চিকিৎসকরা। বিকেলে  রামপুরহাটে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গণইস্তফা প্রদান করা হয় চিকিৎসকদের তরফে৷ জুনিয়র চিকিৎসকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে গোটা দেশের সঙ্গে আন্দোলনে উত্তাল বীরভূমও।

এনআরএস, বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে জুনিয়র চিকিৎসকদের ওপর প্রানঘাতি হামলা, চিকিৎসকদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার বদলে উল্টে মুখ্যমন্ত্রীর হূমকি গোটা রাজ্যের সঙ্গে বীরভূমের চিকিৎসক মহলের মধ্যেও ছড়িয়েছে তীব্র ক্ষোভ। শুক্রবার সকাল থেকেই হাসপাতাল চত্বরে পথে নামেন চিকিৎসকরা। সিউড়ি সদর হাসপাতালে বিপুল পরিমান রোগীর স্বার্থের কথা ভেবে তারা গণইস্তফাপত্র স্বাক্ষর করেও তা জমা না দিয়ে আর একটু অপেক্ষার সিদ্ধান্ত নেন। তবে প্রতিবাদ কর্মসূচি হিসেবে প্রত্যেক চিকিৎসক কালো ব্যাজ পড়ে হাসপাতালে উপস্থিত অন্যান্যদেরও সমস্ত মানুষকেও কালো ব্যাজ পড়িয়ে দেন। চিকিৎসকরা জানান, সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে আন্দোলনের স্বার্থেই এই পদক্ষেপ।

এদিনই বিকেলে রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৩৭ জন চিকিৎসক ইস্তফা জমা দিলেন কলেজ অধ্যক্ষের কাছে। রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, নার্সিং হোম, প্যাথলজি সেন্টারের কর্মী এবং চিকিৎসা ব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত কর্মীরা মৌন মিছিল করেন। আইএমএ-র রামপুরহাট শাখার সম্পাদক চিকিৎসক দেবব্রত দাস বলেন, “ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা এই পেশাই মহানব্রত নিয়ে এগিয়ে এসেছিলেন প্রশাসনের ভূমিকায় তাদের স্বপ্ন ভেঙে গিয়েছে। তারা প্রশাসন ও মুখ্যমন্ত্রীর কাছে সামান সহমর্মিতা চেয়েছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় সেই সহমর্মিতা সরকার দেখায়নি। এই পরিস্থিতে আমরা গন ইস্তফা জমা দিয়েছি।’’ সন্ধ্যায় বোমপুরে হাতে মোমবাতি নিয়ে বুকে কালো ব্যাজ লাগিয়ে পথে নেমেছেন চিকিৎসকরা। ব্যক্ত করেছেন তীব্র প্রতিবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here