Untitled 1 6
Untitled 1 6

ডেস্ক: ভালই চলছিল সব, দেখাও করার কথা ছিল দু’জনের। কিন্তু আচমকাই ফের বৃদ্ধি পেল ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কিম জং উনের সম্পর্কের শীতলতা। মার্কিন রাষ্ট্রপতি এবার কিমকে সরাসরি হুমকি দিয়ে কথা শুনে নিতে বললেন। অন্যথায় ফল যে একেবারেই ভাল হবে না সে কথাও জানিয়ে দেন ট্রাম্প। মার্কিন নেতা উত্তর কোরিয়ার শাসকের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়ে জানান, ”কিম যদি পরমাণু অস্ত্র নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা ছেড়ে দেয় তবেই ক্ষমতায় থাকতে পারবে। কিন্তু ওয়াশিংটনের সঙ্গে চুক্তির পথে না হাঁটলে ওকে ‘শেষ’ করে দেওয়া হবে।”

বলে রাখা ভাল, জুন মাসের ১২ তারিখ এই দুই রাষ্ট্রনেতার ঐতিহাসিক বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে সিঙ্গাপুরে। কিন্তু তার আগেই কিম হুমকি দিয়েছিলেন, তিনি ওই বৈঠকে সামিল হবেন না। কিমের এই হুমকির পাল্টা খোঁচা মারতে ছাড়েন নি ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসে তিনি বলেন, ”কিম নিজের পরমাণু অস্ত্র ত্যাগ করে দিলেন আমি ওকে সুরক্ষা দিতে প্রস্তুত। কেবল সুরক্ষা নয়, আরও অনেক কিছু দিতে পারি। তাই কিমের জন্য সবচেয়ে ভাল হবে যদি ও চুক্তি করে নেয় আমাদের সঙ্গে।”

উত্তর কোরিয়ার এই স্বৈরাচারী শাসককে হুমকি দিয়ে দুটি রাস্তা বেছে নিতে বলেন ট্রাম্প। প্রথম, কিম পরমাণু অস্ত্র ছেড়ে নিজের ক্ষমতায় বসে থাকুক। দ্বিতীয়, লিবিয়ার নেতা গদ্দাফির মতো নিজের পরিণতি করুক। যাকে তাঁর দেশের জনতাই ২০১১ সালে পিটিয়ে সিংহাচ্যুত করে। ট্রাম্পের এই হুমকির পর অবশ্য এখনও নতুন করে মুখ খোলেন নি কিম জং। তবে ছেড়ে কথা বলার পাত্র যে তিনি নন সে বিষয়ে ওয়াকিবহাল আন্তর্জাতিক মহল। ফলে আগামী ১২ জুনের এই ঐতিহাসিক বৈঠকের ভবিষ্যৎ এখনও কার্যত অন্ধকারেই বলা চলে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here