kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: পাড়ার ছেলে এবং একইসঙ্গে স্থা্নীয় ক্লাবের সম্পাদকের অকাল মৃত্যুতে গোটা এলাকা গত কয়েকদিন ধরেই ছিল শোকস্তব্ধ। সোমবার সেই শোকাচ্ছন্ন পরিবেশেই পরিবারের লোকজন-সহ চলচ্চিত্রাভিনেত্রী শুভশ্রী গাঙ্গুলির মা-বাবাও শামিল হলেন সামাজিক কর্তব্য পালনে। গত ২৫ মার্চ আচমকাই মৃত্যু হয় বর্ধমান শহরের বাজেপ্রতাপপুর নবোদয় সংঘের সম্পাদক উত্তম দে ওরফে দীপকের। একদিকে চলছে করোনার জেরে লকডাউন। তারই মাঝে এই মৃত্যু যেন গোটা এলাকাকেই আরও শোকাচ্ছন্ন করে তুলেছিল। কারণ এই করোনা উদ্ভূত পরিস্থিতিতে উত্তমবাবু ক্লাবের ছেলেদের সাধারণ মানুষের স্বার্থে ঝাঁপিয়ে পড়তে বলেছিলেন।

সোমবার ছিল উত্তমবাবুর শ্রাদ্ধানুষ্ঠান। তাঁর ভাই পঙ্কজ দে জানিয়েছেন, সোমবার তাঁর ভাইয়ের  শ্রাদ্ধানুষ্ঠানকে কার্যত বাতিল করা হয়েছে। কেবলমাত্র পুরোহিত দিয়ে যেটুকু অনুষ্ঠান তাইই করা হচ্ছে। তিনি জানিয়েছেন, আত্মীয়স্বজন কিংবা পরিচিতদের নিয়ে যে খাওয়ানোর অনুষ্ঠান ছিল তা বাতিল করে তাঁরা এদিন এলাকার প্রায় ৬০ জন গরিব, দুঃস্থ মানুষের হাতে চাল, আলু প্রভৃতি তুলে দিয়েছেন। তাঁদের বিশ্বাস, যেহেতু তাঁর ভাই সাধারণ মানুষের উপকার করতে ভালবাসতেন, তাই গরিব মানুষের হাতে এই খাদ্যদ্রব্য তুলে দিলে তাঁর ভাইয়ের আত্মা শান্তি পাবে।

এদিকে, উত্তমবাবুর এই প্রয়াণ অনুষ্ঠানে কেবল তাঁর পরিবারের সদস্যরাই নয়, এগিয়ে এলেন বাংলার চলতি সময়ের চলচ্চিত্র অভিনেত্রী শুভশ্রী গাঙ্গুলির বাবা দেবপ্রসাদ গাঙ্গুই এবং তাঁর মা বীণা গাঙ্গুলিও। এদিন তাঁরাও দু’জনে মিলে উত্তমবাবুর স্মরণে স্থানীয় গরিব মানুষদের হাতে চাল ও আলু তুলে দিলেন। দেবপ্রসাদবাবু জানিয়েছেন, চলতি লকডাউনের জেরে গরিব খেটে খাওয়া মানুষের চরম অসুবিধা হচ্ছে। তাই এদিন তাঁরা উত্তমবাবুর পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েই কিছু মানুষকে অন্ন তুলে দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here