kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বীরভূম: বীরভূমের নানুরের বিজেপি কর্মী বলে পরচিত স্বরূপ গড়াই খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্যকর মোড়। বীরভূম থেকে মাস্টার স্ট্রোক তৃণমূলের দাপুটে নেতার।  মৃতের স্ত্রীকে পাশে বসিয়ে তাঁদের পরিবারকে তৃণমূল বলে দাবি করলেন বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। একদিকে বিজেপির সর্বভারতীয় কার্যকরী সভাপতি জেপি নাড্ডা মহালয়ার দিন বাংলার শহীদদের উদ্দেশ্যে অস্থি বিসর্জন দিয়ে তর্পণ করেছেন। আর সেদিনই বিস্ফোরক ভাবে মুখ খুললেন রাজনৈতিক কারণে খুনের ঘটনায় মৃত স্বরূপ গড়াইয়ের স্ত্রী। বিজেপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল, স্বরূপ তাঁদের কর্মী।

শনিবার বোলপুর তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় কার্যালয় সাংসদ অসিত মাল এবং বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন মৃত স্বরূপ গড়াইয়ের স্ত্রী চায়না গড়াই। তিনি বলেন, তাঁর পরিবার বরাবর তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত। বিজেপির সঙ্গে কোন ভাবেই নয়। বিজেপি নেতৃত্ব রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য ভুল পথে চালিত করার চেষ্টা করছে।

অন্যদিকে বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মন্ডল বলেন, ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে স্বরূপ গড়াইয়ের স্ত্রীকে এখন তৃণমূল বানানো হল। জোড়া ফুল শিবিরের দুষ্কৃতীরা তাঁকে খুন করেছিল বলে বাঁচার তাগিদে সবুজ শিবির এই খেলা খেলল। বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনে সিউড়িতে দিলদার শেখ নামে এক বিজেপি কর্মী খুন হন এবং খুন হওয়ার সময় তার বাবা সংবাদমাধ্যমের কাছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই তৃণমূল তাঁকে ভীতি প্রদর্শন করে তাঁদের দলে টানে বলেও দাবি করেন পদ্ম শিবিরের এই নেতা। নিজেপির পক্ষ থেকে বলা হয়, তৃণমূলের এই নোংরা রাজনীতিতে তারা কোনদিন বিচলিত নয়। চায়না গড়াইয়ের ভাই আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য এইভাবে তৃণমূলের সঙ্গ দিচ্ছে বলেও বিস্ফোরক অভিযোগ করেন তিনি।

এখন জল্পনা, বিজেপি নেতা জে পি নাড্ডা যে কর্মীদের অস্থি বিসর্জন দিয়ে তর্পণ করেন তাতে কী স্বরূপ গড়াইয়ের অস্থি ছিল কি না। যদিও সবুজ বা গেরুয়া কোন দলের কাছ থেকেই জানা যায়নি সেই তথ্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here