মহানগর ডেস্ক:  উত্তরপ্রদেশের হামিরপুর জেলায় যমুনা নদীতে একাধিক মৃতদেহ ভাসতে দেখা গিয়েছে। যমুনা নদীতে মৃতদেহগুলো ভাসতে দেখেই গ্রামবাসীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। তাঁরা আশঙ্কা করছেন, মৃতদেহগুলো করোনায় আক্রান্ত। বেশ কিছু স্থানীয় বাসিন্দা অভিযোগ করছেন, হমিরপুরের অনেক গ্রামেই করোনায় কেউ মারা গেলে, তাঁদের দেহ সৎকার করা হচ্ছে না। দেহগুলো যমুনার জলে ভাসিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

জানা গিয়েছে, হামিরপুরের একটি বিশেষ গ্রামে করোনায় মারা গেলে, দেহগুলো যুমনার তীরে পুঁতে দেওয়া হচ্ছে। স্থানীয় বাসিন্দারা আশঙ্কা করছেন, সেই মৃতদেহগুলোকেই যমুনা নদীতে ভাসতে দেখা যাচ্ছে। তবে এই প্রসঙ্গে উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনের তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়নি। অ্যাসিসট্যান্ট সুপারিটেন্টডেন্ট অফ পুলিশ অনুপ কুমার সিং জানিয়েছেন, যেখানে দেহগুলো পাওয়া গিয়েছে, তা কানপুর ও হারিমপুরের সীমান্ত। এই এলাকায় বেশ কিছু পরিবার দেহ সৎকারের বদলে নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার মতো প্রাচীন রীতি ফলো করেন।

তিনি মন্তব্য করেছেন, যমুনার জলে প্রায়শই একটা দুটো দেহ ভাসতে দেখতে পাওয়া যায়। তবে করোনার সময় দেহ ভাসতে দেখা গেলেই স্বাভাবিকভাবে আতঙ্ক ছড়াবে। কীভাবে মৃত্যু হয়েছে, সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। স্থানীয় বাসিন্দা সিয়ারাম জানিয়েছেন, করোনায় মারা যাওয়ার পর অনেকেই দেহ না পুড়িয়ে জলে ভাসিয়ে দিচ্ছেন। সরকার এই বিষয়ে কোনও নজর দিচ্ছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here