ডেস্ক: বিশ্বকাপের আমেজে মশগুল গোটা বিশ্ব। সবার মুখেমুখে ঘুরছে একটাই আলোচনা, কে কোন দলের সাপোর্টার। কার টিম কেমন খেলবে সেই নিয়ে চাপা উত্তেজনা। তবে এর মাঝেই একটি বিষয় সকলের নজর কেড়েছে। রাশিয়ায় রাস্তায় দেখা মিলছে না কোনও কুকুরের। রাশিয়ার সোচি শহরে পাওয়া গেছে বেশ কয়েকটি কুকুরের মৃতদেহ। কিন্তু এর পিছনের কারণটা কি? সকলকেই ভাবাচ্ছে এই বিষয়টি।

সূত্রের খবর বলছে, বিশ্বকাপ উপলক্ষে রাশিয়ায় চলছে রাস্তা সাফাইয়ের কাজ। এই কারণেই নাকি চলছে সারমেয় নিধন পর্ব। সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, বিশ্বকাপের আগেই রাশিয়ার ১১টি শহরে কয়েক হাজার রাস্তার কুকুরকে মেরে ফেলা হয়েছে। যাকে আখ্যা দেওয়া হয়েছে ‘বায়োলজিক্যাল ট্রাশ’ অভিযান। বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে রাশিয়ার শহর জুড়ে নেমেছে উৎসবের ঢল। আর তার মাঝেই নাকি এতগুলো কুকুর বিশ্বকাপ দর্শনার্থীদের বিশেষ করে প্রশাসনের বিরক্তির কারণ হয়ে উঠেছিল এই সারমেয়গুলি। সেই কারণেই ফুটবলের আসর জমার আগেই বিষাক্ত খাবার খাইয়ে মেরে ফেলা হয়েছে হাজার হাজার সারমেয়কে। ‘দ্যা গার্ডিয়ান’ দাবি করেছে বিষাক্ত খাবার খাইয়ে প্রথমে বমি করেছে এই সারমেয়গুলি। তারপরই সারমেয়গুলি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে। তবে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, রাস্তার কুকুরগুলিকে তুলে নিয়ে গিয়ে একটি অস্থায়ী আশ্রয়ে রাখা হয়েছে। বিশ্বকাপের পরই মিলবে তাদের মুক্তি। কারণ বিশ্বকাপ উপলক্ষে রাস্তাঘাটে রয়েছে ভিনদেশীদের ভিড়। তাদের নিরাপত্তার খাতিরেই নাকি এই ব্যবস্থা করেছে প্রশাসন।

‘দ্যা গার্ডিয়ান’ সূত্রের খবর এই সারমেয় নিধনের জন্য নাকি নিয়োগও করা হয়েছে একটি বেসরকারি সংস্থাকে। ফিফার একজন মুখপত্র বলেন, ফিফা এবং স্থানীয় সংগঠন কমিটি পশুদের সঙ্গে এরকম নিষ্ঠুর আচরণ করতে পারেনা। এরকম কিছু ঘটনা যাতে না ঘটে তার জন্য সতর্কতা নেওয়া হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here