মহানগর ওয়েবডেস্ক: রাজ্যসভায় কৃষি বিল পাশ করানো নিয়ে তুমুল হট্টগোলে যে ৮ সাংসদ সরকারি বয়ানে ‘অভব্য আচরণ’ করেছিলেন তাদের গতকাল সাসপেন্ড করা হয়। প্রতিবাদে সেই সাংসদরা সংসদ ভবনের চত্বরে ধর্নায় বসেছিলেন সারা রাত। সকালে ডেপুটি চেয়ারম্যান বহিষ্কৃত সাংসদদের জন্য চা ও জলখাবার নিয়ে হাজির হন সংসদ চত্বরে। তার কিছুক্ষণ পরে তিনি সাংসদের আচরণের প্রতিবাদে ২৪ ঘণ্টার অনশনেও বসলেন।

সংবাদ সংস্থার পোস্ট করা একটি ভিডিওয় দেখা গিয়েছে, ডেপুটি চেয়ারম্যান বসে সাংসদদের সঙ্গে কথা বলছেন। এই প্রসঙ্গে কংগ্রেসের সাংসদ রিপুন বোরা বলেন, ‘’হরিবংশ জি আমাদের কাছে এসে বলেছেন উনি রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান হিসেবে নন, একজন সহকর্মী হিসেবে দেখা করতে এসেছেন। আমরা সাসপেনশনের বিরুদ্ধে অবস্থান চালিয়ে যাচ্ছি।‘’

রবিবার রাজ্যসভায় বিরোধী দলের সাংসদদের সঙ্গে মূল সংঘাত হয়েছিল ডেপুটি চেয়ারম্যানেরই। বিতর্কিত বিল নিয়ে বিরোধীদের আলোচনার দাবী এবং ভোটাভুটি দুটি আর্জিই খারিজ করে দেওয়ায় পরিস্থিতি লাগামছাড়া হয়ে পড়ে। এরপরই স্লোগান দিতে দিতে বিলের প্রতিলিপি ছেঁড়া, মাইক্রোফোন উপড়ে ফেলা ইত্যাদি কার্যকলাপ শুরু হয়ে যায়। সোমবার অধিবেশন শুরু হতেই ‘অভব্য আচরণ’ করার জন্য ৮ সাংসদকে সাসপেন্ড করার কথা ঘোষণা করেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু।

ধর্নায় এসে ডেপুটি চেয়ারম্যানের ‘চা সৌজন্য’ সম্পর্কে তৃণমূলের সাংসদ বলেন, ‘’আমরা অবশ্যই ডেপুটি চেয়ারম্যানকে যে কোনও সময় যে কোনও জায়গায় স্বাগত জানাতে প্রস্তুত। আমরা আগেও সেটা করেছি। কিন্তু ওনার একা আসা উচিত ছিল। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে উনি সংবাদমাধ্যমের লোকজন নিয়ে এসেছিলেন এটাকে একটা ‘শো’য়ে পরিণত করার উদ্দেশ্যে।‘’

যিনি সাংসদদের চা দিয়ে সৌজন্য ও গণতন্ত্রের উদাহরণ তৈরি করলেন সে্ই ডেপুটি চেয়ারম্যান পরে তাদেরই আচরণের প্রতিবাদে ২৪ ঘণ্টার অনশনের সিদ্ধান্ত নিলেন। কৃষি বিল নিয়ে বিরোধীদের সুবিধাজনক অবস্থান অবশ্যই চাপ তৈরি করেছে শাসক দলের ওপর। প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত হরিবংশ সিং–এর চা সৌজন্যের কথা বলতে শুরু করেছেন। বিজেপি’র অন্যান্য নেতাও রাজ্যসভার বিশৃঙ্খলা নিয়ে সরব হয়েছেন। অন্যদিকে বিরোধীরাও জানিয়ে দিয়েছেন সাসপেনশন না উঠলে বিরোধীরা রাজ্যসভার বাকি অধিবেশন বয়কট করবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here