ডেস্ক: জল্পনা ছিল আগে থেকেই। সেই মতো ব্যান ওঠার খবর আসা মাত্রই ষষ্ঠ বিদেশি নিতে ঝাঁপাল কোয়েস ইস্টবেঙ্গল। তবে এবার আর বিদেশের মাটিতে ‘বাতিল’ বা বয়সের ভারে ন্যুব্জ কোনও ‘তারকা’ ফুটবলার নয়। বরং অপেক্ষাকৃত তরুণ, সতেজ খেলোয়াড়কে দলে নিতে ঝাঁপাচ্ছেন লাল-হলুদ কর্তারা।

সূত্রের খবর, জেমি স্যান্টোস কোলাডো নামক এক উঠতি খেলোয়াড়কে সই করাতে চলেছে ইস্টবেঙ্গল। জেমি আন্তর্জাতিক আঙিনায় অ্যাকোস্তা, এনরিকেদের মতো পরিচিত মুখ নন। জেমি আদতে একজন উইঙ্গার। মাঠের দুই প্রান্তেই খেলতে সক্ষম তিনি। স্প‍্যানিশ এই ফুটবলার লা লিগার গুরুত্বপূর্ণ দল স্পোর্টিং গিজনে খেলার পর মিরান্ডেস সি ডি-তে খেলেছেন একজন উইঙ্গার হিসাবে। মিরান্ডেস সি ডি দ্বিতীয় ডিভিশন লা লিগা চ‍্যাম্পিয়ন। রাইট উইঙ্গার হিসেবে স‌ই করতে চললেও বেশি খেলেছেন লেফট উইঙ্গার হিসেবে। আবার খোঁজ করলে এনার সেন্ট্রাল অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে গোল করার ভিডিও দেখা যায়। আসলে একজন পারফেক্ট মিডফিল্ডারের মতোই যে কোনও পজিশনে খেলতে পারেন জেমি। এত কিছুর মাঝেও সবচেয়ে বড় খবর জেমির বয়স মাত্র তেইশ। ক্লাব কর্তাদের আশা,আলেজান্দ্রোর দারুণ পছন্দের এই ফুটবলার অনেক কিছু একা‌ই বদলে দিতে পারবেন। আগামী ডিসেম্বর মাসে সরকারিভাবে ব্যান উঠলেই জেমিকে সই করাতে পারে ইস্টবেঙ্গল।

তরুণ ফুটবলার নেওয়ার খবরে খুশি লাল-হলুদ সমর্থকদের একাংশও। অনেকেই এই ক্ষেত্রে টেনে আনছেন কয়েকবছর আগে আইএসএলে খেলে যাওয়া সামেঘ দাউতির প্রসঙ্গও। অখ্যাত সামেঘের প্রাণবন্ত ফুটবল নজর কেড়েছিল আপামর ভারতীয় ফুটবলপ্রেমীদের। তবে একজন মাঝমাঠের খেলোয়াড় নেওয়ায় স্ট্রাইকিং সমস্যা রয়েই গেল। আপফ্রন্টে বারংবার একা হয়ে পরছেন এস্কুয়েদা। জবি চেষ্টা করলেও এনরিকের সমকক্ষ কখনই নন। ফলে স্ট্রাইকার সমস্যা মেটাতে কী করেন কোয়েস কর্তারা সেটাই দেখার।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here