FotoJet1316

ডেস্ক: মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল গত ৫ এপ্রিল। কিন্তু সুপ্রিম গেড়োয় পড়ে গিয়ে পিছিয়ে ১১ এপ্রিল দিন ধার্য হয় মুক্তির। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হয়নি। কথা হচ্ছে ‘পি এম নরেন্দ্র মোদী’ নিয়ে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জীবনিকে বড়পর্দায় তুলে ধরতে গিয়ে হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্ট ও নির্বাচন কমিশনের কাছে বেশ কয়েকদিন ধরেই নাকানি চোবানি খেতে হয়েছে বিবেক ওবেরয় ও প্রযোজক সন্দীপ সিংকে। কংগ্রেস সহ বিরোধীদের এই সিনেমার ট্রেলার মুক্তির পর থেকেই গভীর অভিযোগ ছিল নির্বাচন চলাকালীন মুক্তি দেওয়া যাবে না এই সিনেমাকে। নির্বাচনের সময় ‘মোডেল কোড অফ কন্ডাক্ট’ ভেঙেছে ‘পি এম নরেন্দ্র মোদী’। এই অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্ট ও নির্বাচনের কমিশনের কাছে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছিল কংগ্রেস সহ একাধিক বিজেপি বিরোধী দলগুলি। যদিও সুপ্রিম কোর্ট তাঁদের রায়ে নির্বাচন কমিশনের কোর্টে নিজেদের বলটা ঠেলে দেন।

তারপরেই গত ১০ এপ্রিল কমিশন প্রেস বিবৃতি দিয়ে জানিয়ে দেন শুধুমাত্র ‘পি এম নরেন্দ্র মোদী’ নয় সবরকম বায়োপিকে যেন নির্বাচন চলাকালীন ওয়েবে কিংবা সিনেমাহলে মুক্তি না পায়। তারপরেই নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যায় এই সিনেমার প্রযোজক সন্দীপ সিং। গত সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ নির্বাচন কমিশনকে জানেন অন্তত একবার সিনেমাটি দেখে আপনারা ব্যান করতে পারতেন। অবিলম্বে কমিশনের জন্য প্রযোজকেরা বিশেষ প্রদর্শনের ব্যবস্থা করার ব্যবস্থা করবেন। সেইমতো গতকাল নির্বাচন কমিশনার সহ একাধিক অফিসার এই সিনেমা দেখেন। সূত্রের খবর, আগামীকালই তাঁরা ‘পি এম নরেন্দ্র মোদী’ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে নিজেদের মতামত জানাবেন।

 

এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বিবেক জানান, ”কমিশনের প্রত্যেক সদস্যই সিনেমাটি দেখেছেন। তাঁদের জিজ্ঞাসা করি কেমন লাগল আপনাদের? যদিও তাঁরা মন্তব্য করতে চাননি। কিন্তু তাঁরা যে সন্তুষ্ট সেটা আমি নিশ্চিত। আমি তাঁদের অনুরোধ করেছি যেন সিনেমাটি মুক্তি দেওয়া হয়।” বিবেককে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে এই সিনেমাতে। এছাড়াও বোমান ইরানি, মনোজ যোশী, প্রশান্ত নারায়ণ, বরখা বিস্ত সেনগুপ্ত, জারিনা ওয়াহাবকে দেখা যাবে এই সিনেমাতে অভিনয় করতে। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন উমাঙ্গ কুমার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here