pic-kolkata bengali news

ডেস্ক: আর কিছুদিনের মধ্যেই দেশের সবচেয়ে বড় নির্বাচনের প্রথম দফার ভোটগ্রহণ। আসন্ন নির্বাচন স্বচ্ছ ও সাবলীল করতে বিভিন্ন রকম পরিকল্পনা নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সব রাজ্যের পাশাপাশি বাংলাতেও নির্বাচন নিয়ে প্রস্তুতি জোরদার করা হয়েছে। এমনিতেই এবার বিজেপির কাছে বাংলা আলাদা মাত্রা পেয়েছে। সব রাজ্যের মতোই বাংলাতেও গেরুয়া ধ্বজা ওড়াতে বদ্ধপরিকর তারা। সেই প্রেক্ষিতে কড়াকড়িও ব্যাপক। এবার রাজ্যের ৪২টি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে ৬টির ওপর তীক্ষ্ম নজরদারী দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন।

কমিশন সূত্রে খবর, রায়গঞ্জ, মুর্শিদাবাদ, রানাঘাট, আসানসোল, শ্রীরামপুর এবং উত্তর কলকাতা, এই ছ’টি কেন্দ্রের জন্য একজন করে পুলিশ অবজারভার পাঠাচ্ছে নির্বাচন কমিশন, যারা সেখানকার আইনশৃঙ্খলা, কেন্দ্রীয় বাহিনীর রুটমার্চ ইত্যাদির ওপর নজর রাখবে। বাকি ৩৬টি কেন্দ্রের জন্য বরাদ্দ ১৮ জন অবজারভার, অর্থাৎ প্রত্যেকে ২টি করে কেন্দ্র সামলাবেন। একইসঙ্গে জানানো হয়েছে, নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে ২৪ জন পুলিস অবজার্ভার নিয়োগ করা হচ্ছে। পাশাপাশি থাকবে ৪৭ জন জেনারেল অবজার্ভারও। এরমধ্যে ঝাড়গ্রামের জন্য এবং দার্জিলিং সহ পাহাড় এলাকার জন্যও আলাদা করে জেনারেল অবজার্ভার নিয়োগ করা হবে।

 

উল্লেখ্য, ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে বাংলা ও ঝাড়খণ্ডে পুলিশ পর্যবেক্ষক হিসাবে কমিশনের তরফে নিয়োগ করা হয় কে কে শর্মাকে। নির্বাচনে কোথায় কীভাবে বাহিনী মোতায়েন করা হবে সে দায়িত্ব ছিল তাঁর উপর। তবে তাঁকে নিয়ে তুমুল আপত্তি তোলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এক ছবি দেখিয়ে তিনি জানান, আরএসএসের সভায় উর্দি পরে উপস্থিত ছিলেন কে কে শর্মা। আরএসএস ঘনিষ্ঠ হওয়ার অভিযোগে রাজ্যের কেন্দ্রীয় পুলিশ পর্যবেক্ষকের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় কে কে শর্মাকে। পরিবর্তে তাঁর জায়গায় এসছেন প্রাক্তন আইপিএস বিবেক দুবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here