নিজস্ব প্রতিবেদক, জলপাইগুড়ি: ফের হাতির অকাল-মৃত্যু! এবার জলপাইগুড়ির বৈকুন্ঠপুরের আলাপচাঁদ বনাঞ্চল এলাকায় বিদ্যুত্স্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হল এক বুনো হাতির। বৃহস্পতিবার সকালে এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। বিদ্যুৎ দফতরের বিরুদ্ধেও গাফিলতির অভিযোগ উঠেছে।

বৈকুন্ঠপুর ডিভিশনের আলাপচাঁদ বনাঞ্চল এলাকায় হাতির বিদ্যুত্স্পৃষ্ট হওয়ার ঘটনা অবশ্য অস্বাভাবিক কিছু নয়। কেননা আলাপচাঁদ বনাঞ্চলের ভিতর দিয়ে সারা বছরই হাতির দল যাতায়াত করে। বনের ভিতরে চিরাভেজা নামে একটি ঝোড়া রয়েছে। সারাবছর জল থাকায় বন্যপ্রাণীরা এই ঝোড়ায় জল পান করতে আসে। এদিকে, ওদলাবাড়ি থেকে ক্রান্তি পর্যন্ত বিস্তৃত এই বনাঞ্চলের পাশ দিয়ে গিয়েছে একটি রাজ্য সড়ক। ওই সড়কের উপর দিয়ে গিয়েছে ১১০০ ভোল্টের বৈদ্যুতিক তার। এদিন সকালে চিরাভেজা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় ওই হাইভোল্টেজ বিদ্যুতের তারের নীচে দাঁতালটির নিথর দেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। ওই বিদ্যুতের তারেই স্পৃষ্ট হয়েই দাঁতালটির মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তে অনুমান। তবে বেশ উঁচু দিয়ে যাওয়া এই তারের সংস্পর্শে দাঁতালটি কীভাবে এল তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

বন দফতর সূত্রে খবর, একটি পূর্ণবয়স্ক হাতি শুঁড় উপর দিকে তুললে সেটি ১৭ থেকে ১৮ ফুট পর্যন্ত উচুতে ওঠে। এই হাতিটি সম্ভবত শুঁড় দিয়ে কোনও গাছের ডাল ভাঙার চেষ্টা করছিল। তখনই বিদ্যুতের তারের সঙ্গে শুঁড় সংস্পৃষ্ট হয়ে হাতিটির মৃত্যু হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। বৈকুন্ঠপুর ডিভিশনের ডিএফও উমারানি বলেন, ‘হাতির শুঁড়ে কালো দাগ রয়েছে। তার থেকেই অনুমান করা হচ্ছে, শুঁড়ের সঙ্গে বিদ্যুৎবাহী তারের সংযোগ ঘটায় হাতিটির মৃত্যু হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পরই প্রকৃত কারণ জানা যাবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here