মহানগর ওয়েবডেস্ক: বিশ্বকাপে ফাইনালে বেশ বড় রকমেরই আম্পায়ারিং এরর যে হয়েছিল, তা সকলের সামনে তুলে ধরেছেন প্রাক্তন আম্পায়ার সাইমন টফেল। একে আইসিসির অদ্ভুত নিয়ম, আর তার ওপর আম্পায়ারিং এরর, সব মিলিয়ে বিশ্বসেরা হয়েও ইংল্যান্ডকে প্রবল সমালোচনার মুখে বারবার পড়তে হচ্ছে। কিন্তু তাতেও কিছু যায় আসে না, দিনের শেষে তারাই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন, এমনটাই মত সেদেশের ক্রিকেট বোর্ডের ডিরেক্টর অ্যাশলে গিলসের।

রবিবার টানটান উত্তেজনার ফাইনাল ম্যাচের শেষ ওভারে যাবতীয় নাটকের সূত্রপাত। ওই ওভারে মার্টিন গাপ্টিলের একটি থ্রো বেন স্টোকসের ব্যাটে লেগে চার হয়ে যায়। আম্পায়ার ধর্মসেনা ও ইরাসমাস মোট ছয় রান (দু’ রান দৌড়ে ও চার এক্সট্রা) দেন। সেটাই পরে ফ্যাক্টর হয়ে যায়।

ফক্স স্টারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সাইমন টফেল জানান, বল যখন ফিল্ডার থ্রো করেছে, তখন ব্যাটসম্যান দুই রান পূর্ণ করেনি। ফলে নীতি অনুযায়ী ওটা পাঁচ রান দেওয়া উচিত ছিল। কিন্তু ফিল্ড আম্পায়াররা ছয় রান দেন। ওই এক্সট্রা এক রান না হলে, ফলাফল অন্যরকম হতেই পারত। এছাড়া পাঁচ রান হলে আদিল রশিদের স্ট্রাইক নেওয়ার কথা ছিল।

যদিও এক্ষেত্রে আম্পায়ারদের পাশেই দাঁড়িয়েছেন পাঁচবারের আইসিসি বর্ষসেরা আম্পায়ার। তিনি বলেন, এই ধরণের হাই ভোল্টেজ ম্যাচে আম্পায়ারদের ওপর প্রচুর চাপ থাকে। ফলে এই একটা ভুল না হলে নিউজিল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেতই, তা বলা যায় না।

তবে এই সব বিষয়কে গুরুত্ব দিতে নারাজ গিলস। প্রাক্তন এই স্পিনার জানান, ‘এই সব বিষয় নিয়ে আমি একেবারেই মাথা ঘামাতে রাজি নই। আমরা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর ট্রফিটা আমদের কাছেই থাকবে।’

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here