bengali news

 

মহানগর ডেস্ক: শীতলকুচি ইস্যুতে এই প্রথম মুখ খুললেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর৷ আজ রবিবার ট্যুইটারে তিনি লিখেছেন, কোচবিহারের ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক৷ গণতন্ত্রে হিংসার কোনও স্থান নেই৷ পাশাপাশি নাম নাম না করে তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে খোঁচা দিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন ও কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সম্মান করা সবার উচিৎ৷ হিংসার নিন্দা সকলের করা উচিৎ৷ হিংসা-অশান্তি বন্ধে সকলেরই উদ্যোগী হওয়া উচিৎ৷ কারণ, গণতন্ত্রে হিংসার কোনও স্থান নেই৷ রাজ্যপাল আরও বলেছেন, কোচবিহারের শীতলকুচিতে হিংসার জেরে প্রাণহানির ঘটনা অত্যন্ত হৃদয় বিদারক ও দুঃখজনক৷ একইসঙ্গে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সম্মান জানানোর আবেদনও করেন৷ মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, শাসকের উচিৎ রাজধর্ম পালন করা৷ সরকারি কাজে নিযুক্ত ব্যক্তিদের উচিৎ কেন্দ্রীয় বাহিনী ও আধা সামরিক বাহিনীকে যথোচিত সম্মান দেওয়া৷ এভাবে ঘুরিয়েফিরিয়ে তৃণমূলনেত্রীকে বিঁধলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর৷

এখন প্রশ্ন উঠছে, তুচ্ছাতিতুচ্ছ ব্যাপারেও আগ বাড়িয়ে মুখ খোলায় ওস্তাদ রাজ্যপাল কেন শীতলকুচিকাণ্ডের ২৪ ঘণ্টা পর প্রতিক্রিয়া জানালেন৷ এত স্পর্শকাতর একটি ঘটনা, যাতে ৪ জন মানুষের প্রাণহানি হল, তারপরেও পুরো একটা দিন কীভাবে মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন রাজ্যপাল? উল্লেখ্য, বর্তমান রাজ্যপালের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সম্পর্ক আগাগোড়াই সাপে-নেউলে৷ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এতটাই তলানিতে রয়েছে যে, এর আগে আর কোনও সরকার বা মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে রাজ্যপালের সম্পর্ক এতটা নীচে নামেনি৷ রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, রাজ্যপালের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সুসম্পর্ক বজায় রাখা বাঞ্ছনীয়৷ এই সম্পর্কে অবনতি হওয়াটা গণতন্ত্রের জন্য শুভ লক্ষ্মণ নয়৷

উল্লেখ্য, সম্প্রতি বিভিন্ন জনসভা থেকে আধাসেনা ও কেন্দ্রীয় বাহিনী এবং নির্বাচন কমিশনের ভূমিকাকে পক্ষপাতদুষ্ট বলে তোপ দেগেছেন তৃণমূলনেত্রী৷ এমনকী ক’দিন আগে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘেরাও করার কথাও বলেন মমতা৷ যা নিয়ে কমিশন তাঁকে নোটিশ পাঠিয়ে ব্যাখ্যাও চায়৷ জবাবে মমতা বলেন, আমি মোটেই নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করিনি৷ শান্তিপূর্ণ ভোট সুনিশ্চিত করতেই তিনি কোচবিহারে ভোট প্রচারে গিয়ে মহিলাদেরকে বলেছিলেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা ঝামেলা পাকালে তাদেরকে ঘেরাও করুন৷ একদল মহিলা ঘিরে থাকুন, আর এক দল মহিলা বুথে গিয়ে ভোট দিন৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here