kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: সংসদের উচ্চকক্ষ তথা রাজ্যসভায় যাচ্ছেন সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। তাঁর নাম মনোনীত করেছেন খোদ রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। সেই প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে এই সংক্রান্ত নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত সামনে আসতেই প্রবল বিতর্ক শুরু হয়েছে দেশের রাজনৈতিক মহলে। এ নিয়ে এবার মুখ খুললেন স্বয়ং রঞ্জন গগৈ। রাজ্যসভার মনোনয়ন নিয়ে তিনি জানালেন এ বিষয় তিনি শপথগ্রহণের পরেই বক্তব্য রাখবেন। তার আগে কিছুই তিনি বলতে চান না।

গগৈ জানিয়েছেন, ‘আমি সম্ভবত কাল দিল্লি যাব। আমাকে আগে শপথ নিতে দিন, তারপর আমি এই সিদ্ধান্ত কেন নিলাম সেই সম্পর্কে সবটা জানাব।’ এক সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিয়ে এমনটাই বলেছেন সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি। উল্লেখ্য, এর আগে মোদী সরকারের প্রথম জমানায় সুপ্রিম কোর্টের আর এক প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি পি সথাশিবমের অবসরের পর তাঁকে কেরলের রাজ্যপাল নিযুক্ত করা হয়েছিল।

রঞ্জন গগৈ ২০০১ সালে গুয়াহাটি হাইকোর্টের বিচারপতি হিসেবে জুডিশিয়াল সার্ভিসে কাজ শুরু করেন। ২০১০ সালে তিনি পঞ্জাব এবং হরিয়ানায় বদলি হন। ২০১২ সালের ২৩ এপ্রিল তাঁকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে উন্নিত করা হয়। ২০১৮ সালের ৩ অক্টোবর দেশের ৪৬তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন তিনি। প্রধান বিচারপতি থাকাকালীন তিনি গুরুত্বপূর্ণ কিছু মামলার রায় দেন। সেই মামলাগুলির মধ্যে অন্যতম প্রধান ছিল অযোধ্যা মামলার রায়। বিরোধীদের দাবি, এই মামলার রায়ের ‘পুরস্কার’ হিসেবেই তাঁকে রাজ্যসভায় পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ট্যুইটারে রঞ্জন গগৈকে রাজ্যসভায় মনোনীত করার সিদ্ধান্তে কেন তিনি বিস্মিত হবেন না প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। একইসঙ্গে, প্রধান বিচারপতি থাকাকালীন তাঁর রায় দেওয়া কিছু মামলারও উল্লেখ করেছেন মহুয়া। এককথায়, কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষে একাধিক রায় দেওয়ার জন্যই রঞ্জন গগৈকে রাজ্যসভায় পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেই পরোক্ষে মন্তব্য করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here