news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ২০২০ সাল। মানব সভ্যতার ইতিহাসে নানা কারণেই এই বছর জায়গা করে নিয়েছে চিরকালের মতো। যার মধ্যে অবশ্যই এবং সর্ব প্রথমেই বলতে হয় করোনা ভাইরাসের কথা। বিশ্ববাসীর যে ক্ষতি ভাইরাস করে দিয়ে গেছে তা কত বছরে পূরণ করা সম্ভব হবে তা কেউ জানে না। পশ্চিমবঙ্গ তথা পূর্বভারতে বিপুল ক্ষতি করে দিয়ে গেছে আমফান। এছাড়াও রয়েছে ভারতের বুকে পঙ্গপালের হামলাও। তবে দুর্যোগ এবং অসময় এখনি শেষ হওয়ার নয়।

আরও একটা কারণে এই সাল দগদগে ঘা সৃষ্টি করে যেতে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানব সভ্যতার ইতিহাসে সবথেকে উষ্ণতম বছর হতে পারে দুই হাজার কুড়ি।

গোটা বিশ্ব এবং ভারতের তাপমাত্রা যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে অশনিসংকেত দেখা শুরু করেছেন আবহাওয়াবিদরা। বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, চলতি বছরেই পৃথিবীর বুকে সর্বোচ্চ মাত্রার তাপপ্রবাহ বইতে পারে। এবং সেটা এতটাই যা সব রেকর্ড ছাপিয়ে যাবে। যখন থেকে তাপমাত্রার রেকর্ড রাখা শুরু হয়েছিল, তখন থেকে শুরু করে এখনও পর্যন্ত এত গরম কোনও দিন পড়েনি যা এই বছর পড়বে। গত সপ্তাহের শুরু থেকেই যার ইঙ্গিত উত্তর ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে। এই মারাত্মক তাপপ্রবাহে ভারত-বাংলাদেশ সহ এশিয়ার দেশগুলি কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হবে। খরা সম্ভাবনা সৃষ্টি হতে পারে। ভারতের আবহাওয়া দপ্তর ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে, এই বছর বর্ষায় বৃষ্টিপাত হবে কম। ফলে খরার আশঙ্কা আরও কয়েকগুণ বেড়ে গিয়েছে।

তবে শুধু ভারতের বিজ্ঞানীরা নয়, ইংল্যান্ড এবং আমেরিকার বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, চলতি বছর উষ্ণায়ন সব রেকর্ড ভেঙে দেওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। ব্রিটিশ মধ্যম জানাচ্ছে, ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ সম্ভাবনা রয়েছে যে এই বছর গরমের পূর্বতন রেকর্ড ভেঙে যাবে। অন্যদিকে আমেরিকা সাফ জানিয়েছে, ইতিহাসে সবচেয়ে উষ্ণ বছরের রেকর্ড ২০২০-তেই হবে এমন সম্ভাবনা ৭৫ শতাংশের বেশি। ফলে এই বছর দুর্ভোগ বা দুর্যোগ পোহান সাধারণ মানুষের এখনো বহু বাকি। সেটা ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে। গোটা বিশ্বের কাছে যেন বিভীষিকাময় হয়ে উঠছে এই ২০২০।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here