covaxine
বিতর্কে কোভ্যাক্সিন

মহানগর ডেস্ক: ভারতে তৈরি করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে দেশের অভ্যন্তরে যতই বিতর্ক হোক না কেন, বিদেশে এই ভ্যাকসিনের চাহিদা রয়েছে। শনিবার টুইটে বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেন, ইতিমধ্যে কোভ্যাক্সিন ১৫টি দেশে সরবরাহ করা হয়েছে। আরও ২৫টি দেশ এই কোভ্যাক্সিন নেওয়ার জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।

শনিবার টুইটে বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেন, এই দেশগুলোকে মোটামুটি তিনটি পর্যায়ে ভাগ করা হয়েছে। এক- দরিদ্র দেশ। দুই- যে সব দেশ কম টাকার ভ্যাকসিন চাইছে। তৃতীয় পর্যায় সেই সব দেশ রয়েছে, যারা সরাসরি ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে ১৫টি দেশে আমরা দেশের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন পাঠাচ্ছি। বিভিন্ন পর্যায়ে আরও ২৫টি দেশ রয়েছে। যারা ভারতের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এটা বলতেই হয়, করোনা ভ্যাকসিন তৈরির বিষয়ে বিশ্বে একটা জায়গা করে নিয়েছে। তিনি মন্তব্য করেছেন, কিছু দেশকে অনুদানের ভিত্তিতে করোনার ভ্যাকসিন পাঠানো হয়েছে। কিছু দেশ প্রস্তুতকারী সংস্থাকে মূল্য দিয়ে করোনার ভ্যাকসিন চেয়েছিল ভারত সরকারের কাছ থেকে। কিছু কিছু দেশ সরাসরি করোনা ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী সংস্থার কাছে সরাসরি ভ্যাকসিনের জন্য আবেদন করেছে।

ভারতে এই মুহূর্তে দুটো ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা শুরু হয়েছে। ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন এবং অক্সফোর্ডের কোভিশিল্ড যা ভারতে সেরাম ইনস্টিটিউট তৈরি করছে। ১৬ জানুয়ারি থেকে ভারতে টিকাকরণ শুরু হয়ে গিয়েছে। প্রথম সারির করোনা যোদ্ধা স্বাস্থ্যকর্মীদের এই ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। জয়শঙ্কর টুইটে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্য ছিল দেশকে ওয়ার্ল্ড ফার্মেসি হিসাবে প্রতিষ্ঠা করা। এতে দেশের দক্ষতা প্রকাশের সুযোগ বাড়বে। এর আগে ভারত যেভাবে তথ্যপ্রযুক্তির নেতৃত্বকারী দেশ হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করেছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here