sachin
বেনজির আক্রমণের শিকার সচিন।

মহানগর ডেস্ক: একদা তিনি ব্যাট হাতে নামলে গ্যালারি জুড়ে গর্জন ভেসে আসত। ‘সচিন’ শব্দে আন্দোলিত হত আসমুদ্রহিমাচল। এবার সেই সচিন তেন্ডুলকরকে নিয়েই ক্ষোভে ফুঁসছেন নেটিজেনরা।
‘ঐক্যবদ্ধ ভারত’ নিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যাবেলা টুইট করেন সচিন তেন্ডুলকর। রাতের দিকে টুইট করেন বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, অজিঙ্ক রাহানেরাও। সেই টুইট ঘিরেই অসন্তোষ জমাট বেঁধেছে নেটিজেনদের মধ্যে। কেউ কেউ রাগে সচিনের শেষ টেস্টের ছেঁড়া টিকিটের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘আমি আগে সচিনের ভক্ত ছিলাম। আজ থেকে সব শ্রদ্ধা হারালাম।’
ভারতে ক্রিকেট একটা ধর্ম, আর সেই ধর্মের একটাই ঈশ্বর তিনি হলেন সচিন তেন্ডুলকর। সেই সচিনের টুইটের তলায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন ভক্তরা। কেউ লিখছেন, ‘আপনি আগে কথা বললে রিহানাদের বলতে হতো না’। কেউ আবার নরেন্দ্র মোদীর ওয়াশিংটনের ঘটনার সম্পর্কের টুইট তুলে ধরে লিখেছেন, ‘এই সময়ে বাইরের লোক কথা বলেনি অন্য দেশের বিষয়ে’। কোনও ভক্ত আবার তাঁকে জিজ্ঞেস করেছেন, বিজেপি-র হয়ে কথা বলার জন্য অর্জুন তেন্ডুলকর ভারতীয় দলে জায়গা পাবেন কি না?
অনেক নেটিজেন মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, এই কৃষকদের অনেকেই তাঁর খেলা দেখতেন। তাঁর করা প্রতিটা রান তাঁদের মুখে হাসি এনে দিত। সেই কৃষকদের নিয়ে কথা না বলে নীরব দর্শক হয়ে থাকার জন্যও সচিনকে ব্যঙ্গ করেছেন অনেকে। মারিয়া শারাপোভা একবার বলেছিলেন যে তিনি সচিনকে চেনেন না। সেই ছবি পোস্ট করে এক নেটিজেন সমর্থক টুইট করেছেন ‘মারিয়াই ঠিক ছিলেন’। অনেকে লিখেছেন সঙ্ঘের হয়ে ব্যাট করতে নেমেছেন সচিন।
সচিনকে কুরুচিপূর্ণ আক্রমণ করতেও দেখা গিয়েছে বহু নেটিজেনকে। সচিনের উদ্দেশে এক নেটিজেন লেখেন, ‘টুইট করার আগে ক্রিকেটের ভগবান ছিলেন, টুইট করার পর আম্বানির কুকুর’। সচিনকে সচিনই আউট করেছেন বলেও মত এক নেটগরিকের। ২০০৩ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সচিন ১৯৪ রানে ব্যাট করার সময় ডিক্লেয়ার ঘোষণা করেন রাহুল দ্রাবিড়। সচিনের এই টুইটের পর রাহুলের সেই সিদ্ধান্তকে সামনে এনে একজন লিখেছেন, ‘আজ মনে হচ্ছে, সেদিন রাহুল ঠিক করেছিল।’
এর আগেও ভারতে নানান আন্দোলন হয়েছে, রাজনৈতিক পট-পরিবর্তনের সাক্ষী থেকেছে দেশ। কিন্তু কোনও ব্যাপারেই নিজের মত প্রকাশ করেননি ক্রিকেটের ভগবান। কিন্তু মঙ্গলবার সন্ধ্যার একটা টুইট ক্রিকেটের বরপুত্রকে যেন এক ঝটকায় বাস্তবের মাটিতে নামিয়ে আনল। ভক্তদের কাছেই ভূপতিত হলেন ক্রিকেট ঈশ্বর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here