international news
Highlights

  • এফএটিএফ-র কালো তালিকাভুক্ত হওয়ার থেকে আরও একবার কোনওরকমে বেঁচে গিয়েছে পাকিস্তান
  • পাকিস্তান ধূসর তালিকাতেই বহাল
  • সেনাপ্রধান এমএম নারাভানে মনে করেন যে, এবার সীমান্ত সংঘর্ষ কিছুটা হলেও কমবে

মহানগর ওয়েবডেস্ক: এফএটিএফ-র কালো তালিকাভুক্ত হওয়ার থেকে আরও একবার কোনওরকমে বেঁচে গিয়েছে পাকিস্তান। সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলিকে আর্থিক সহায়তা এবং অর্থনৈতিক তছরুপের উপর নজর রাখা সংস্থা পাকিস্তানকে ধূসর তালিকাতেই বহাল রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে সেনাপ্রধান এমএম নারাভানে মনে করেন যে, এবার সীমান্ত সংঘর্ষ কিছুটা হলেও কমবে।

নারাভানে জানান, পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ১৫-২০টি জঙ্গি ক্যাম্প রয়েছে যেখানে ২৫০-৩০০ জঙ্গিরা আছে। প্রতিনিয়ত তারা জম্মু-কাশ্মীর সীমান্ত আক্রমণের ছক কষে। যদিও তিনি জানান, ভারতীয় সেনার পাল্টা আক্রমণের ঝাঁজ বাড়ার জন্য সেই আক্রমণ এখনও অনেক কমেছে। এফএটিএফ-র সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে তাঁর মত, কালো তালিকা থেকে পাকিস্তান বেঁচে গেলেও ধূসর তালিকায় থেকেই গিয়েছে। তার মানে তারা সন্ত্রাস দমনে কিছুই করতে পারেনি। এফএটিএফ যদি পাকিস্তানকে এরকমই চাপে রাখে তবে তারা সীমান্ত সন্ত্রাস করার আগে এবার ভাববে।

সেনাপ্রধান আরও বলেন, এতদিন চিন পাকিস্তানকে সাহায্য করে আসছিল বিভিন্ন প্রকল্পে। কিন্তু এফএটিএফ-র সিদ্ধান্তে তারাও বুঝে গিয়েছে যে, পাকিস্তানের বন্ধু হয়ে তাদের লাভ নেই বরং ক্ষতি। এবার তারাও পাকিস্তানের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে ধীরে ধীরে। নারাভানের দাবি, পাকিস্তান যদি সন্ত্রাস দমনে এখনও কোনও পদক্ষেপ না নেয় তবে তাদের ভবিষ্যত সব দিক দিয়েই অন্ধকার।

উল্লেখ্য, একবার এফএটিএফ-র কালো তালিকাভুক্ত হয়ে গেলে বৈদেশিক সমস্ত অনুদান বন্ধ হয়ে যাবে পাকিস্তানের। একই সঙ্গে সমস্ত রকমের দ্রব্যের আমদানি ও রফতানির উপরও জারি হবে নিষেধাজ্ঞা। ফলে একবার ধূসর থেকে সরে কালো তালিকায় নেমে এলে রীতিমতো ভাঁড়ে মা ভবানী দশা হবে পাকিস্তানের। কোনও মতেই আন্তর্জাতিক মানচিত্রে আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না তারা।

অন্যদিকে, সন্ত্রাস দমনে আমেরিকা-ভারত সহ ইউরপিয়ান দেশগুলি পাকিস্তানকে যে বার্তা দিতে চলেছে তাতে এবার যোগদান ইমরান খানের বন্ধু রাষ্ট্র চিনও। শুধু তাই নয়, হুঁশিয়ারি দেওয়ার এই তালিকায় থাকছে সৌদি আরবও। সবমিলিয়ে পাকিস্তান যে এবার সঙ্গীহারা হতে চলেছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। একইসঙ্গে চিনের এই অবস্থান বদল কূটনৈতিক দিক থেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করছে আন্তর্জাতিক মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here