বর্ধমান অগ্নিকাণ্ড: সম্পত্তির ভাগ না দিতেই ছেলের গোটা পরিবারকে শেষ করতে চেয়েছিল বাবা!

0
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বর্ধমান: বর্ধমানের গলসি থানার খানো ডাঙাপাড়ায় একই পরিবারের ৪জনকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টার ঘটনায় চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এল শুক্রবার। একইসঙ্গে গোটা ঘটনার তদন্তে শুক্রবারই ঘটনাস্থলে যান ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞের একটি দল। এদিন ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা পোড়া এলাকা থেকে জামাকাপড়, পোড়া চামড়া, মাটি-সহ একাধিক নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যান। গোটা বাড়িটিকে পুলিশ এদিনও ঘিরে রাখে।

উল্লেখ্য, বুধবার গভীর রাতে নিজের ছোট ছেলে সেখ ইকবালের ঘরে রান্নার গ্যাসের পাইপ ঢুকিয়ে দিয়ে আগুন ধরিয়ে ইকবালের পুরো পরিবারকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে তাঁর বাবা সেখ ইউসুফ। এই ঘটনায় প্রতিবেশীরা ছুটে এসে আশঙ্কাজনক অবস্থা সেখ ইকবাল, তাঁর স্ত্রী তুহিনা বেগম, দুই মেয়ে বিলকিস খাতুন ও সুহানা খাতুনকে উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। বুধবার বিকালেই মারা যান সেখ ইকবাল। বাকিরা বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। এই ঘটনায় পুলিশ ঘাতক সেখ ইকবালের বাবা প্রাক্তন রেলকর্মী সেখ ইউসুফ এবং বড় ভাই সেখ আক্রমকে গ্রেফতার করে। তদন্তের স্বার্থে দু’জনকেই আদালত পুলিশি হেফাজতে পাঠায়।

এদিকে, তুহিনা বেগমের বাপের বাড়ির লোকজন এবং ডাঙাপাড়া গ্রামের বাসিন্দারা এদিন জানিয়েছেন, কেবল সম্পত্তিগত বিবাদের জেরেই সেখ ইকবালের পরিবারকে খুনের চেষ্টা করা হয়নি। তাঁরা জানিয়েছেন, বিয়ের পর সেখ ইকবালের প্রথম কন্যাসন্তান হয়। এরপর দ্বিতীয়বারও কন্যা সন্তান হয়। আর তারপর থেকেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে সেখ ইউসুফ। পরপর কন্যাসন্তান হওয়ায় সেখ ইকবালকে সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার উদ্যোগ নেয়। সমস্ত সম্পত্তি বড় ছেলে সেখ আক্রামকে দিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। একইসঙ্গে পরপর কন্যাসন্তান হওয়ায় তুহিনা বেগম এবং তাঁর দুই মেয়েকে বাথরুম পর্যন্ত ব্যবহার করতে দিত না সেখ ইউসুফ। তাঁরা জানিয়েছেন, সেখ ইউসুফ প্রকাশ্যেই বলত সেখ ইকবালকে সম্পত্তি দিলে তা মেয়ের জামাইরা ভোগ করবে। তাই সেখ ইউসুফ তার সম্পত্তি নিজের দখলে রাখতে নিজের শ্যালকের মেয়ের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছিল সেখ ইকবালের। কিন্তু ইকবালের দুটি মেয়ে হওয়ায় পর থেকে বদলে যেতে থাকে। সম্পত্তি থেকে সেখ ইকবাল ও তার পরিবারকে বঞ্চিত করার উদ্যোগ নেয়।

আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই সেখ ইকবালের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই বিবাদ চলছিল সেখ ইউসুফের। যদিও এব্যাপারে গ্রামের সালিশি সভায় মীমাংসা হয়, সেখ ইকবালকে ৩ কাঠা জমি ও ৪ লক্ষ টাকা দেবে সেখ ইউসুফ। সেই টাকা দিতেই মঙ্গলবার কলকাতার বেসরকারি সংস্থায় কাজ করা সেখ ইকবালকে ডেকে নিয়ে আসে সেখ ইউসুফ। আর পরিকল্পনামাফিকও তাদের পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে।

অন্যদিকে, ডাঙাপাড়া গ্রামের এই ঘটনায় সেখ ইউসুফ এবং সেখ আক্রামের ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন গ্রামবাসীরা। পাশাপাশি বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৩ জনের আরও ভাল চিকিৎসার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here