ডেস্ক: ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বরের নোটবন্দির কথা কারুরই অজানা নয়। সেই সময় বাতিল করা হয়েছিল ৫০, ১০০ এবং ৫০০’র সমস্ত নোট বাতিল বলে ঘোষণা করা হয়। তার কয়েকমাস পর থেকেই কেন্দ্রের তরফে একাধিক নতুন নোট চালু করা হয়। এবার বাজারে চালু হচ্ছে ২০ টাকার কয়েন। বুধবার অর্থমন্ত্রকের তরফে দেওয়া কএটি নোটিশে বলা হয়েছে এই নোটের আকার হবে ২৭ মিলিমিটার ‘ডেকাগন’ এবং ১২ পলিগন। ১০ টাকার কয়েনটিও ২৭ মিলিমিটারের, তবে এর আকার বহুভুজ নয়। ১০ টাকার কয়েনের মতো এই ২০ টাকার কয়েনের ধারে কোনওরকম লেখা বা আঁকা থাকছে না বলেই জানানো হয়েছে।

পুরনো ১০ টাকার কয়েনের মতো ২০ টাকার কয়েনেও দুটি স্তর থাকবে। একটি স্তরে থাকছে ৬৫ শতাংশ তামা, ১৫ শতাংশ নিকেল এবং মধ্যভাগে থাকবে ৭৫ সতাংশ তামার চাকতি। এছাড়া কেন্দ্রের তরফে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে আর কোনও বিশেষ নকশার কথা উল্লেখ করা হয়নি। প্রসঙ্গত, আজ থেকে ঠিক ১০ বছর আগে ২০০৯ এর মার্চ মাসেই রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার তরফে ১০ টাকার কয়েন চালু করার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে ১৩ রকমের ১০ টাকার কয়েন চালু করা হয়, ফলে সাধারণ মানুষের পক্ষে কোনটা সঠিক সেটা সেটা বোঝাটাই কষ্টসাধ্য হয়ে দাড়িয়েছিল। ফলে নোটবাতিলের পর বাজারে চলতি ওই সমস্ত ১০ টাকার কয়েন অনেক ব্যবসায়ীই নিতে প্রত্যাখান করেছিল। এমত অবস্থায় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফে একটি বিবৃতি দিয়ে বলা হয় যে বাজারে ১৪ রকমের ১০ টাকার কয়েন চালু আছে এবং প্রতিটিই বৈধ।

 

প্রসঙ্গত কিছুদিন আগেই কেন্দ্রের তরফে প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীকে শ্রদ্ধার্ঘ দিতে ১০০ টাকার বিশেষ কয়েন চালু করার কথা বলা হয়েছিল। ১০০ টাকার ওই কয়েনের বিশেষত্ব হল, কয়েনের এক দিকে থাকছে অশোক স্তভের আঁকা এবং মধ্যভাগে দেবনগরী হরফে ‘সত্যমেব জয়তে’ লেখা থাকছে। এছাড়াও কয়েনটিতে অটল বিহারী বাজপেয়ীর ছবি থাকছে। এছাড়াও নেতাজিকে শ্রিদ্ধার্ঘ্য দিতে ৭৫ টাকার কয়েন চালু করার কথাও বলা হয়েছিল রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here