aligarh bengali news

Highlights

  • আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১,০০০ পড়ুয়ার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ
  • এফআইআর-এ লেখা হয়েছে, ‘ওরা বেআইনিভাবে দেশবিরোধী স্লোগান তুলেছিল। পড়ুয়ারা পুলিশ কর্মীদের ওপর পাথর ছোড়ে এমনকী সরকারি গাড়িও নষ্ট করে দেয়।’
  • পাবলিক সম্পত্তি নষ্ট করার পাশাপাশি ফৌজদারির মতো ধারা প্রয়োগ করা হয়েছে এই এফআইআর-এ

মহানগর ওয়েবডেস্ক: এতদিন সহিংস আন্দোলনে অংশগ্রহণকারীদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিয়ে ঝাল মিটিয়েছিল যোগী সরকার। এবার তাদের নিশানায় ছাত্র সমাজ। নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনের নামে হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১,০০০ পড়ুয়ার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। এমনটাই খবর সর্বভারতীয় সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে। প্রাথমিকভাবে পুলিশের তরফে জানানো হয়েছিল যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০,০০০ পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। পুলিশের সিনিয়র সুপারিনটেনডেন্ট আকাশ কুলহারি এএনআই-কে বলেন, টাইপিং মিসটেক হয়ে গিয়েছিল। ওটা ১,০০০ হবে।

পুলিশের তরফে দায়ের হওয়া এফআইআর-এ লেখা হয়েছে, ‘ওরা বেআইনিভাবে দেশবিরোধী স্লোগান তুলেছিল। পড়ুয়ারা পুলিশ কর্মীদের ওপর পাথর ছোড়ে এমনকী সরকারি গাড়িও নষ্ট করে দেয়।’ আরও উল্লেখ করা হয়েছে, পুলিশের ওপর অর্ডার ছিল ন্যূনতম শক্তি প্রয়োগ করতে। ‘কিন্তু যখন তাতেও কাজ হয়নি তখন কাঁদানে গ্যাস এবং খুব কম পরিমাণে লাঠি চার্জ করা হয়।’ এএনআই-কে এমনটাই জানানো হয়েছে পুলিশের তরফে। পাবলিক সম্পত্তি নষ্ট করার পাশাপাশি ফৌজদারির মতো ধারা প্রয়োগ করা হয়েছে এই এফআইআর-এ।

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে গত ১৫ ডিসেম্বর মধ্যরাত নাগাদ একটি শান্তিপূর্ণ মিছিলের আয়োজন করেছিল আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকশো পড়ুয়ারা। দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পুলিশি ‘অত্যাচারের’ বিরুদ্ধে ধিক্কারও উঠেছিল এই মিছিল থেকে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট থেকে বাইরে বের হতে চাইলেই আলিগড়ের পড়ুয়াদের বাধা দেয় উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। এরপরই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়। জলকামান, টিয়ার গ্যাসের অবাধ ব্যবহার করে পুলিশ। এমনকী পড়ুয়াদের পুলিশ নির্মমভাবে পেটাচ্ছে এমন কিছু ভিডিয়োও ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। পুলিশ যদিও বরাবরের মতোই নিজের পিঠ বাঁচিয়ে দাবি করেছে, পড়ুয়ারা হিংসাত্মক হয়ে ওঠায় তাদের বলপ্রয়োগ করতে হয়েছে।

এই অবস্থায় উত্তরপ্রদেশের ডিজিপি সংবাদ মাধ্যমের কাছে দাবি করেছেন, তাঁর পুলিশ বাহিনী যথেষ্ট সংযম দেখিয়েছে। বলাই বাহুল্য, যে ধরনের ভিডিয়ো বা ছবি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে উঠে এসেছে, তা যোগী রাজ্যের পুলিশ প্রধানের এই বক্তব্যকে কোনও ভাবেই সমর্থন করে না। আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১,০০০ পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলায় কারোর নাম না থাকলেও এতে নতুন করে যে ছাত্র সমাজ গর্জে উঠবে, তা একপ্রকার নিশ্চিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here